ঢাকা, ফেব্রুয়ারী ২২, ২০১৮, ১০ ফাল্গুন ১৪২৪
---
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » ইসির সংলাপ,কতটুকু সফল হবে?
বুধবার ● ২ আগস্ট ২০১৭, ১০ ফাল্গুন ১৪২৪
Email this News Print Friendly Version

ইসির সংলাপ,কতটুকু সফল হবে?

---আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে রোডম্যাপের অংশ হিসেবে সংলাপ শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বিষয়টি ইতিবাচক বলা যায়। সোমবার সুশীল সমাজের সদস্যদের সঙ্গে সংলাপ করেছে কমিশন। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা শেষে যেসব পরামর্শ পাওয়া যাবে সেগুলোর আলোকে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেয়া হলে সবার আস্থা অর্জন করা কঠিন হবে না। সরকার, প্রশাসন, ইসি এবং সব রাজনৈতিক দল ইতিবাচক ও সহযোগিতার মানসিকতা নিয়ে এগিয়ে এলে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন আয়োজন সম্ভব হবে বলে আমরা মনে করি।

সুশীল সমাজের সঙ্গে ইসির সংলাপে যে বিষয়গুলো উঠে এসেছে তার মধ্যে সবার আস্থা অর্জন, নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দেয়া এবং ভোটের আগেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার পরামর্শগুলো গুরুত্বপূর্ণ। এর পাশাপাশি সেনাবাহিনী মোতায়েন, ‘না’ ভোটের বিধান চালু এবং দলীয় অনুগত হিসেবে পরিচিত কর্মকর্তাদের নির্বাচনের সময় রিটার্নিং অফিসারসহ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত না করার পরামর্শগুলো আমলে নিতে হবে। ৫ জানুয়ারির মতো বিতর্কিত নির্বাচন যেন না হয়- সেটি নিশ্চিত করার জন্য সরকার ও নির্বাচন কমিশনকেই সামনে থেকে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করতে হবে। একই সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলকে যে কোনো মূল্যে ক্ষমতায় থাকার এবং অন্যান্য দলকে যেভাবেই হোক ক্ষমতায় যাওয়ার মানসিকতা ত্যাগ করে জনগণের রায়ের প্রতি সম্মান দেখানোর দৃষ্টিভঙ্গি নিতে হবে। ‘বিচার মানি তালগাছ আমার’ মানসিকতা যে অগণতান্ত্রিক ও বর্তমান সময়ে অচল সেটি সবাইকে উপলব্ধি করতে হবে।

সুশীল সমাজের সদস্যদের সঙ্গে সংলাপের পর সংবাদ ব্রিফিংয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বলেছেন, প্রয়োজনে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করেই নির্বাচন করা হবে। প্রশ্ন হল, ইসি একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান, সেক্ষেত্রে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার প্রশ্ন কেন? আমরা মনে করি, কাউকে ছাড় দিয়ে নয়, সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে আইনানুযায়ী সর্বোচ্চ নিরপেক্ষ অবস্থানে থেকেই নির্বাচনের আয়োজন করতে হবে ইসিকে। একই সঙ্গে সিইসি ও অন্য নির্বাচন কমিশনারদের বক্তব্য ও আচরণে যেন সাংবিধানিক পদের নিরপেক্ষতা বজায় থাকে সেটিও নিশ্চিত করতে হবে। বর্তমানে দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে যাতে এ পরিস্থিতি কেউ নষ্ট করতে না পারে সেদিকে সবাইকে বিশেষ লক্ষ রাখতে হবে।

গণতন্ত্র মানে কেবল নির্বাচন, ভোট গ্রহণ ও ক্ষমতার পালাবদল নয়। গণতন্ত্র একটা সংস্কৃতি- অন্যের মতকে শ্রদ্ধা করা, জনরায় মেনে নেয়া গণতন্ত্রের অন্যতম মূল্যবোধ। আমাদের রাজনৈতিক দল ও নেতাদের এগুলো বুঝতে হবে, মানতে হবে। তাহলেই কেবল অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন এবং উন্নত গণতন্ত্রের দিকে যাত্রা সম্ভব। চলমান সংলাপ প্রক্রিয়া শেষ হলে এর মধ্য থেকে পাওয়া ইতিবাচক ও গ্রহণযোগ্য পরামর্শগুলো আমলে নেয়ার মানসিকতা এবং সৎ সাহস সরকার ও ইসির থাকতে হবে। অন্যথায় লোক দেখানো সংলাপ কেবল সময় ও অর্থের অপচয় ছাড়া আর কিছুই দিতে পারবে না। এটা অজানা নয়, দেশ-বিদেশের সবার বিশেষ নজর থাকবে আগামী নির্বাচনের দিকে।


বগুড়ায় ধর্ষণ মামলায় তুফানের স্ত্রী, শাশুড়ি, সহযোগীসহ ফের রিমান্ডে

চাঙা পুঁজিবাজার


এ বিভাগের আরো খবর...

গোয়েন্দা নজরধারী বাড়ানো হয়েছে- বেনজীর আহমেদ গোয়েন্দা নজরধারী বাড়ানো হয়েছে- বেনজীর আহমেদ
ভারতীয় সুপ্রিমকোর্টের রায়, তিস্তা ইস্যু সহায়ক হবে? ভারতীয় সুপ্রিমকোর্টের রায়, তিস্তা ইস্যু সহায়ক হবে?
টেকসই ও দুর্যোগ সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে : রাষ্ট্রপতির আহ্বান টেকসই ও দুর্যোগ সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে : রাষ্ট্রপতির আহ্বান
ভ্যালেন্টাইন্স ডে’র একই বাক্সে ৩৯ বছর ধরে স্ত্রীকে উপহার! ভ্যালেন্টাইন্স ডে’র একই বাক্সে ৩৯ বছর ধরে স্ত্রীকে উপহার!
খালেদা জিয়াকে স্থানান্তরের চিন্তা সরকারের নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে স্থানান্তরের চিন্তা সরকারের নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ভালোবাসবার আবার দিনক্ষণ কি? ভালোবাসবার আবার দিনক্ষণ কি?
বিচারক সংকট,আদালত কাঠামোর সংস্কার জরুরি বিচারক সংকট,আদালত কাঠামোর সংস্কার জরুরি
পিজা অন ফায়ার নেশায় বুঁদ হওয়া ঠেকায় কে! পিজা অন ফায়ার নেশায় বুঁদ হওয়া ঠেকায় কে!
বক্স অফিসে দীপিকার মাস্তানি বক্স অফিসে দীপিকার মাস্তানি
সুইস প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর বিশেষ তাৎপর্য আছে? সুইস প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর বিশেষ তাৎপর্য আছে?

সর্বাধিক পঠিত

২৩ কর্মকর্তাকে ঢাকার বাইরে বদলি করল- শিক্ষা প্রশাসন ২৩ কর্মকর্তাকে ঢাকার বাইরে বদলি করল- শিক্ষা প্রশাসন
ব্যথা মুক্ত রাখে যেসব খাবার ব্যথা মুক্ত রাখে যেসব খাবার
আলী আকবর রুপু চলে গেলেন না ফেরার দেশে আলী আকবর রুপু চলে গেলেন না ফেরার দেশে
মন্টিনিগ্রোর মার্কিন দূতাবাসে: গ্রেনেড হামলা! মন্টিনিগ্রোর মার্কিন দূতাবাসে: গ্রেনেড হামলা!
গণকবর নিশ্চিহ্ন করে প্রমাণ নষ্ট করছে: মিয়ানমার গণকবর নিশ্চিহ্ন করে প্রমাণ নষ্ট করছে: মিয়ানমার
রাণীনগর ওভারব্রিজটি উচু করার আহ্বান এলাকা বাসীর রাণীনগর ওভারব্রিজটি উচু করার আহ্বান এলাকা বাসীর
২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে সমৃদ্ধ দেশ: প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে সমৃদ্ধ দেশ: প্রধানমন্ত্রী
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা
খালেদার অর্থদন্ড স্থগিত: জামিন শুনানি রবিবারে খালেদার অর্থদন্ড স্থগিত: জামিন শুনানি রবিবারে
সৌদি সাংবাদিকের মাইকে আজান বন্ধ করার আহ্বান সৌদি সাংবাদিকের মাইকে আজান বন্ধ করার আহ্বান
গোয়েন্দা নজরধারী বাড়ানো হয়েছে- বেনজীর আহমেদ
ভারতীয় সুপ্রিমকোর্টের রায়, তিস্তা ইস্যু সহায়ক হবে?
টেকসই ও দুর্যোগ সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে : রাষ্ট্রপতির আহ্বান
ভ্যালেন্টাইন্স ডে’র একই বাক্সে ৩৯ বছর ধরে স্ত্রীকে উপহার!
খালেদা জিয়াকে স্থানান্তরের চিন্তা সরকারের নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ভালোবাসবার আবার দিনক্ষণ কি?
বিচারক সংকট,আদালত কাঠামোর সংস্কার জরুরি
পিজা অন ফায়ার নেশায় বুঁদ হওয়া ঠেকায় কে!
বক্স অফিসে দীপিকার মাস্তানি
সব্যসাচীর কাছে আবদার দীপিকার-অনুষ্কার মতো বউ সাজতে চাই