ঢাকা, জুলাই ২০, ২০১৮, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫
---
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » খেলাধুলা » বিপিএলে কেমন করছেন সাকিবরা?
বুধবার ● ২২ নভেম্বর ২০১৭, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

বিপিএলে কেমন করছেন সাকিবরা?

---বিবিসি২৪নিউজ,খেলা প্রতিনিধি:বিপিএলে আছেন জাতীয় দলের প্রায় সব খেলোয়াড়ই । কিন্তু আসরটিতে সর্বোচ্চসংখ্যক ছক্কা হাঁকানো ‘ওঁরা ১১ জন’-এর তালিকায় ঠাঁই করে নিয়েছেন কিনা জাতীয় দলের বাইরের এক খেলোয়াড়! সহজ কথায়, ঘরোয়া ক্রিকেটের এক দুর্নিবার অলরাউন্ডার।

এবার বিপিএলের ঢাকা পর্ব পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১৪টি ছক্কা মেরেছেন ক্যারিবীয় ওপেনার এভিন লুইস। তাঁকে অনুসরণ করছেন যথাক্রমে কার্লোস ব্রাফেট (১২), লুক রনকি (১১) কাইরন পোলার্ড (১১) আর ক্রিস গেইল (৯)। অর্থাৎ ছক্কাবাজদের তালিকায় শীর্ষ পাঁচের চারজনই ক্যারিবিয়ান। আশ্চর্যের ব্যাপার হলো পরবর্তী ছয় শীর্ষ ছক্কাবাজের মধ্যে বাংলাদেশি মাত্র একজন!

গেইলের সমান ৯টি ছক্কা মেরে তালিকার ছয়ে আরিফুল হক (গেইল বাউন্ডারি বেশি মারায় তাঁর এক ধাপ ওপরে)। পরের শীর্ষ পাঁচজনের মধ্যে আন্দ্রে ফ্লেচার শুধু ৮টি ছক্কা মেরেছেন। এ ছাড়া বাকি চারজনের—মারলন স্যামুয়েলস, শহীদ আফ্রিদি, দানুশকা গুণাথিলাকা, সুনীল নারাইন—ছক্কাসংখ্যা সমান ৭টি করে। অর্থাৎ শীর্ষ এগারোতে একমাত্র বাংলাদেশি খুলনা টাইটানসের আরিফুল হক।

আরিফুলের পর বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭টি করে ছক্কা ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক ও সাব্বির রহমানের। এ তিন ব্যাটসম্যানের মধ্যে শুধু সাব্বিরেরই টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা পাকা। ইমরুল তো সব দলেই অস্থায়ী হয়ে পড়ছেন আর মুমিনুলের গায়ে ‘টেস্ট ক্রিকেটার’ ট্যাগ লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকে। সত্যিই বিপিএলের লীলা বোঝা দায়!

শীর্ষ ১১ ছক্কাবাজের মধ্যে আরিফুল হক একমাত্র দেশি ক্রিকেটার। সর্বোচ্চ ইনিংসেও বিদেশিদের আধিপত্য। শীর্ষ দশে বাংলাদেশি মাত্র দুজন! সাব্বির ও মুমিনুল। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে ৭০ রানের ইনিংসটি দিয়ে তিনে এসে গেছেন সাব্বির। রাইডার্সের বিপক্ষেই ৬৩ রানের ইনিংস দিয়ে নয়ে মুমিনুল। শীর্ষস্থানীয় লুক রনকিও ৭৮ রানের ইনিংসটি খেলেছেন রাইডার্সদের বিপক্ষে।

ব্যাটিং গড়ে শীর্ষ পাঁচে ঠাঁই পাননি কোনো দেশি ক্রিকেটার। ২ ম্যাচে ৯৩.০০ গড় নিয়ে শীর্ষে লেন্ডল সিমন্স। দ্বিতীয় আরেক ক্যারিবীয় স্যামুয়েলস (৫ ম্যাচে ৭৬.৫০ গড়)। পরবর্তী তিনজন যথাক্রমে—রবি বোপারা (৬ ম্যাচে ৭৩.০০ গড়), শোয়েব মালিক (২ ম্যাচে ৬৩.০০ গড়) এবং ডোয়াইন স্মিথ (১ ম্যাচে ৬২.০০ গড়)। ব্যাটিং গড়ে দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে শীর্ষে ইমরুল কায়েস। ৬ ম্যাচে ৫০.২৫ গড় নিয়ে আছেন ছয়ে।

স্ট্রাইক রেটের হিসেবেও জাতীয় দলের তারকা ব্যাটসম্যানদের খামতির প্রশ্ন উঠতে পারে। শীর্ষ কুড়িতে মধ্যে আছেন মাত্র তিনজন! এর মধ্যে দুজনের তো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকই হয়নি। ৩ ম্যাচে ১৭০.৫৮ স্ট্রাইক রেট নিয়ে দেশি ক্রিকেটারদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন রাজশাহী কিংসের জাকির হোসেন (১০ম)। ১৩তম স্থানে আরিফুল হকের স্ট্রাইকরেট ৬ ম্যাচে ১৬১.৫৩। জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে শীর্ষ কুড়িতে ঠাঁই করে নেওয়া একমাত্র ক্রিকেটারের পরিচয় আবার বোলিং অলরাউন্ডার। কুমিল্লার হয়ে ৬ ম্যাচে ব্যাট করে ১৫০.০০ স্ট্রাইকরেটে রান করেছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।

বিপিএলে এখনো কেউ সেঞ্চুরি পাননি। সর্বোচ্চ তিনটি ফিফটি টি-টোয়েন্টির ‘অখ্যাত’ খেলোয়াড় উপুল থারাঙ্গার। দুটি ফিফটিতে তাঁর পেছনে আছেন তিন ক্যারিবীয়—গেইল, পোলার্ড ও লুইস। বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের নেই একের অধিক পঞ্চাশ ছাড়ানো ইনিংস। সর্বোচ্চ রানে শীর্ষ তিনেও নেই কোনো বাংলাদেশি। ৬ ম্যাচে ২০১ রান নিয়ে দেশি ক্রিকেটারদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইমরুল (৩য়)।

বোলিংয়ে আলো ছড়াচ্ছেন খুলনার আবু জায়েদ। বোলিংয়ে সর্বোচ্চ উইকেটসংখ্যায় অবশ্য দেশি ক্রিকেটারদের ভালোই আধিপত্য। খুলনার পেসার আবু জায়েদ রাহী ৬ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে আছেন এখানকার নেতৃত্বে। আবু জায়েদসহ শীর্ষ চারের তিনজনই দেশি—আবু হায়দার (৭ ম্যাচে ১১ উইকেট) ও সাকিব আল হাসান (৭ ম্যাচে ১০ উইকেট)। ৪ ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে এখানে ‘কাবাব মে হাড্ডি’ হয়েছেন শহীদ আফ্রিদি। শীর্ষ দশ বোলারের মধ্যে ছয়জনই দেশি।

সেরা বোলিং ফিগার সাকিবের (৩.৫-০-১৬-৫)। তবে শীর্ষ দশে দেশি বোলারদের মধ্যে ঠাঁই করে নিতে পেরেছেন শুধু আবু জায়েদ। শীর্ষ দশে একাই তিনবার জায়গা পেয়েছেন খুলনার এই পেসার। কিপটেমিতে শীর্ষ পাঁচে কোনো দেশি বোলারের জায়গা হয়নি। ৫ ম্যাচে ওভারপ্রতি ৫.৮৪ গড়ে রান দিয়ে দেশি বোলারদের নেতৃত্বে সোহাগ গাজী (ষষ্ঠ)। বোলিং স্ট্রাইক রেটের শীর্ষ চারেও একমাত্র দেশি সেই আবু জায়েদ।

অর্থাৎ ব্যাটিং কিংবা বোলিং—কোনো জায়গাতেই জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা এখনো নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। চট্টগ্রামে কী ঘটে, এখন সেটাই দেখার অপেক্ষা।


নারীরা পুরুষদের চেয়ে উত্তম-শাহরুখ!

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আসছে মিয়ানমার- টিলারসন


এ বিভাগের আরো খবর...

‘টুইটারম্যান’ নেইমার–এমবাপ্পে ‘টুইটারম্যান’ নেইমার–এমবাপ্পে
এশিয়ান গেমসে থাকছেন না মামুনুল এশিয়ান গেমসে থাকছেন না মামুনুল
ধোনি কি অবসর নিয়ে ফেলছেন? ধোনি কি অবসর নিয়ে ফেলছেন?
প্রবাসীরা অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরকারের পদক্ষেপ চায়- ইউকে মানিকগঞ্জ সমিতি প্রবাসীরা অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরকারের পদক্ষেপ চায়- ইউকে মানিকগঞ্জ সমিতি
ভূমি মন্ত্রণালয়ের অফিসগুলো দুর্নীতির আখড়া! ভূমি মন্ত্রণালয়ের অফিসগুলো দুর্নীতির আখড়া!
অক্টোবরে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ অক্টোবরে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ
ফরাসি ফুটবল সৌরভে বিশ্বকাপ ফরাসি ফুটবল সৌরভে বিশ্বকাপ
খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে দেশমের ইতিহাস খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে দেশমের ইতিহাস
টিন এজার হিসেবে পেলের পাশে- এমবাপে টিন এজার হিসেবে পেলের পাশে- এমবাপে
সেরা খেলোয়াড় মদরিচ, বুট কেইনের সেরা খেলোয়াড় মদরিচ, বুট কেইনের

সর্বাধিক পঠিত

সনাতন ছাড়া সব ধরনের সোনার দাম কমেছে সনাতন ছাড়া সব ধরনের সোনার দাম কমেছে
মিয়ানমারের রাখাইনে বিশ্ববিদ্যালয় চালু হচ্ছে মিয়ানমারের রাখাইনে বিশ্ববিদ্যালয় চালু হচ্ছে
সব দলের অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচন চায়- ইইউ সব দলের অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচন চায়- ইইউ
বামপন্থী জোট বেশি, ভোট কম দুর্বলতা নিজেদেরই বামপন্থী জোট বেশি, ভোট কম দুর্বলতা নিজেদেরই
জীবনের সব গল্প নাটকের সাথে মিলে না? জীবনের সব গল্প নাটকের সাথে মিলে না?
লন্ডনে গানে গানে চিরকুট ব্যান্ড লন্ডনে গানে গানে চিরকুট ব্যান্ড
‘টুইটারম্যান’ নেইমার–এমবাপ্পে ‘টুইটারম্যান’ নেইমার–এমবাপ্পে
এশিয়ান গেমসে থাকছেন না মামুনুল এশিয়ান গেমসে থাকছেন না মামুনুল
ধোনি কি অবসর নিয়ে ফেলছেন? ধোনি কি অবসর নিয়ে ফেলছেন?
উষ্ণতম দিন পার করল রাজধানীবাসী উষ্ণতম দিন পার করল রাজধানীবাসী
প্রবাসীরা অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরকারের পদক্ষেপ চায়- ইউকে মানিকগঞ্জ সমিতি
ভূমি মন্ত্রণালয়ের অফিসগুলো দুর্নীতির আখড়া!
রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় বিশ্ব সম্প্রদায় ব্যর্থ হয়েছে-গুতেরেস
শিশু মৃত্যু দায়ী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিন?
প্রকল্প বাস্তবায়নে-দুর্নীতির দিকে নজর দিন?
মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন- আমলে নিন?
আর্জেন্টিনা ১-০ নাইজেরিয়া, ক্রোয়েশিয়া ০-০ আইসল্যান্ড
ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকে কোন পথে নিয়ে যাচ্ছেন?
প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটির মামলার প্রকৌশলীদের জামিন মঞ্জুর
কাঙ্খিত ফল পেতে হলে,ভেজালবিরোধী অভিযান চালু রাখতে হবে?