ঢাকা, জুন ২০, ২০১৮, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
---
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » অর্থ–শেয়ারবাজার » গতি ফিরছে না শেয়ারবাজারে
সোমবার ● ১২ মার্চ ২০১৮, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

গতি ফিরছে না শেয়ারবাজারে

গতি ফিরছে না শেয়ারবাজারেবিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব প্রতিনিধি: ঢাকার শেয়ারবাজারে কেনাবেচা ২০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে এসেছে।গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্রড ইনডেক্স শূন্য দশমিক ৯৪ শতাংশ কমে গেছে। নিম্নমুখী ছিল উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিটি সূচকই।বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ কমে যাওয়ায় ডিএসইতে গতকাল লেনদেন নেমে আসে ২৩৬ কোটি ৭৩ লাখ ৮১ হাজার টাকায়, যা ২০১৬ সালের ১০ জুলাইয়ের পর সর্বনিম্ন। কেনাবেচা কমেছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই)। এক কার্যদিবসের ব্যবধানে সেখানে লেনদেন ২৪ কোটি থেকে ১২ কোটি টাকার ঘরে নেমে এসেছে।বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসের কেনাবেচার শুরু থেকেই সূচকে নিম্নমুখী প্রবণতা বিদ্যমান ছিল। দুই দফায় সূচক পতন থামলেও আধাঘণ্টার ব্যবধানে আবার পয়েন্ট হারাতে থাকে সবগুলো সূচক। দিনশেষে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি কমেছে ব্রড ইনডেক্স ডিএসইএক্স।

আগের কার্যদিবসের চেয়ে দশমিক ৯৪ শতাংশ বা প্রায় ৫৫ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৭৭৩ দশমিক ৩৭-এ নেমে এসেছে সূচকটি। ব্লু-চিপ সূচক ডিএস ৩০ আগের দিনের চেয়ে দশমিক ৮২ শতাংশ কমে ২ হাজার ১১৬ পয়েন্টে এবং শরিয়া সূচক ডিএসইএস দশমিক ৬৭ শতাংশ কমে ১ হাজার ৩৬৩ পয়েন্টে নেমে আসে। ডিএসইতে ৫৩টির দরবৃদ্ধির বিপরীতে দিনশেষে দর হারিয়েছে ২৪৬টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড ও করপোরেট বন্ড এবং অপরিবর্তিত ছিল ৩১টির বাজারদর।

সিএসইতে দিনশেষে দশমিক ৭ শতাংশ কমে ১০ হাজার ৭৯০ পয়েন্টে নেমে এসেছে সিএসসিএক্স। চট্টগ্রামের নির্বাচিত ৩০ কোম্পানির সূচক সিএসই ৩০ আগের দিনের চেয়ে দশমিক ৮৪ শতাংশ কমে ১৬ হাজার ১৯০-এর ঘরে অবস্থান করছে। দশমিক ৬ শতাংশের বেশি কমেছে সেখানকার অন্যান্য সূচকও। সিএসইতে ৩৭টির দরবৃদ্ধির বিপরীতে দিনশেষে ১৬৩টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের বাজারদর আগের দিনের তুলনায় কমেছে। অপরিবর্তিত ছিল ২১টির দর।

খাতভিত্তিক চিত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, জীবন বীমা ছাড়া গতকাল কোনো খাতের বাজার মূলধন বাড়েনি। ব্যাংক, সিরামিক, প্রকৌশল, তথ্যপ্রযুক্তি, এনবিএফআই, কাগজ-মুদ্রণ, সেবা-আবাসন ও ভ্রমণ-অবকাশের মতো খাতগুলোর শেয়ারদর গড়ে ১ শতাংশের বেশি কমেছে।

লেনদেনে প্রাধান্য ছিল যথাক্রমে প্রকৌশল, বস্ত্র, ওষুধ-রসায়ন ও ব্যাংকিং খাতের। ডিএসইর মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ ছিল প্রকৌশল কোম্পানিগুলোর দখলে। এরপর বস্ত্র ১৫ শতাংশ, ওষুধ রসায়ন ১৪ এবং ব্যাংকিং খাতের দখলে ছিল দিনের কেনাবেচার ১১ শতাংশ।

ডিএসইতে লেনদেনে (টাকায়) সবচেয়ে এগিয়ে ছিল যথাক্রমে মুন্নু সিরামিক, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল, বেক্সিমকো ফার্মা, লংকাবাংলা ফিন্যান্স, জেমিনি সি ফুড, ড্রাগন সোয়েটার, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা, ওয়েস্টার্ন মেরিন ও নাহি অ্যালুমিনিয়াম।

দাম সবচেয়ে বেশি কমেছে লংকাবাংলা ফিন্যান্স, জাহিন স্পিনিং, ইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, আইডিএলসি, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, ওইমেক্স ইলেকট্রোড, পেনিনসুলা চিটাগং, ইমাম বাটন, রহিম টেক্স ও প্রিমিয়ার সিমেন্ট।

দরবৃদ্ধির শীর্ষে উঠে এসেছে এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্স, ফারইস্ট লাইফ, এইচআর টেক্সটাইল, হা ওয়েল টেক্স, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ, আনলিমা ইয়ার্ন, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, উত্তরা ফিন্যান্স, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স ও জেমিনি সি ফুড।


গ্যাস সংকটে সরকারের বিশেষ মনোযোগ দেয়া দরকার

বিশ্বকাপ বয়কট করতে পারে আরও তিন দেশ


এ বিভাগের আরো খবর...

ডিএসইর ব্লু-চিপ সূচক কমেছে ডিএসইর ব্লু-চিপ সূচক কমেছে
প্রাইম ব্যাংক নগদ লভ্যাংশ পাঠিয়েছে? প্রাইম ব্যাংক নগদ লভ্যাংশ পাঠিয়েছে?
গ্যাসের দাম ১৪৩ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ গ্যাসের দাম ১৪৩ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ
আসন্ন ঈদে এটিএম বুথে পর্যাপ্ত টাকা রাখার নির্দেশ আসন্ন ঈদে এটিএম বুথে পর্যাপ্ত টাকা রাখার নির্দেশ
জাপার এমপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি- অর্থমন্ত্রীর জাপার এমপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি- অর্থমন্ত্রীর
বাজেটে শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশার প্রতিফলন নেই বাজেটে শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশার প্রতিফলন নেই
ইন্টারনেটে সম্পূর্ণ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি ইন্টারনেটে সম্পূর্ণ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি
ব্যাংকিং খাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের শাস্তির দাবি ব্যাংকিং খাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের শাস্তির দাবি
সরকারি চাকুরেদের যে সুবিধা তা আগে চোখেও দেখিনি- অর্থমন্ত্রী সরকারি চাকুরেদের যে সুবিধা তা আগে চোখেও দেখিনি- অর্থমন্ত্রী
দাম কমবে যেসব পণ্যের দাম কমবে যেসব পণ্যের

সর্বাধিক পঠিত

অভিবাসী শিশুদের সমালোচনার মুখোমুখি- ট্রাম্প অভিবাসী শিশুদের সমালোচনার মুখোমুখি- ট্রাম্প
শিগগিরই উ. কোরিয়া সফর করবেন- পম্পেও শিগগিরই উ. কোরিয়া সফর করবেন- পম্পেও
গাজীপুরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার গাজীপুরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার
মৌলভীবাজারে বিশুদ্ধ পানির জন্য হাহাকার! মৌলভীবাজারে বিশুদ্ধ পানির জন্য হাহাকার!
ময়মনসিংহে মাইক্রোবাস-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ৩ ময়মনসিংহে মাইক্রোবাস-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ৩
দর্শকের কান্না দেখে আমিও কেঁদেছি? দর্শকের কান্না দেখে আমিও কেঁদেছি?
মালয়েশিয়ার রেমিটেন্স প্রেরণে শীর্ষ অবস্থানে বাংলাদেশ মালয়েশিয়ার রেমিটেন্স প্রেরণে শীর্ষ অবস্থানে বাংলাদেশ
প্রচারণায় মুখরিত গাজীপুর নগরী প্রচারণায় মুখরিত গাজীপুর নগরী
আবারও কমলাপুরে রাজধানীমুখী মানুষের ভিড় আবারও কমলাপুরে রাজধানীমুখী মানুষের ভিড়
বছরে ৭ কোটি মানুষ শরণার্থী হচ্ছে-ইইএনএইচসিআর বছরে ৭ কোটি মানুষ শরণার্থী হচ্ছে-ইইএনএইচসিআর
প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটির মামলার প্রকৌশলীদের জামিন মঞ্জুর
কাঙ্খিত ফল পেতে হলে,ভেজালবিরোধী অভিযান চালু রাখতে হবে?
মাদকযুদ্ধে কেন হারবে বাংলাদেশ?
টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ৩
ঈদযাত্রা নির্বিঘ্নে মহাসড়কে পদক্ষেপ নিন
হাইকোর্টে ১৮ অতিরিক্ত বিচারক নিয়োগ
বাংলাদেশে দু’কোটি মানুষ আর্সেনিকের ঝুঁকিতে?
প্রধানমন্ত্রীকে ২০৪১সাল পর্যন্ত ভারতের পূর্ণ সমর্থনের কারন কি?
‘মাদক ব্যবসার চেয়েও ক্রসফায়ার বড় অপরাধ?
অসহনীয় যানজট নিরসনে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিন?