ঢাকা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » আইন-আদালত » ক্ষমতায় থাকাকালীন দুর্নীতির বিচার কঠোর হয়: অ্যাটর্নি জেনারেল
রবিবার ● ১৮ মার্চ ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

ক্ষমতায় থাকাকালীন দুর্নীতির বিচার কঠোর হয়: অ্যাটর্নি জেনারেল

অ্যাটর্নি জেনারেলবিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব প্রতিবেদক:রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকাকালীন দুর্নীতির বিচার কঠোর হয়,জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিনের বিরোধিতা করে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম মন্তব্য করেছেন। আজ দুপুর ১২টার দিকে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আপিল বিভাগ থেকে বেরিয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল।মাহবুবে আলম বলেন, ‘দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) খালেদা জিয়াসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে যে মামলা দায়ের করেছিল, সেই মামলায় অন্যান্য সব আসামির ১০ বছর জেল এবং খালেদা জিয়ার পাঁচ বছর জেল হয়েছে। তার (খালেদা জিয়ার) এই সাজার বিরুদ্ধে আপিল করে হাইকোর্টে জামিন চেয়েছিলেন। হাইকোর্ট চার মাসের জামিন দিয়েছিল। হাইকোর্টের এ আদেশের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন এবং রাষ্ট্রপক্ষ যে লিভ টু আপিল করেছিলাম, তার শুনানি আজ হলো।আমরা আমাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেছি। বলেছি, হাইকোর্ট যে যুক্তিতে খালেদা জিয়াকে জামিন দিয়েছে, সেটা সঠিক হয়নি। তার কারণ খালেদা জিয়ার দণ্ড পাঁচ বছর। এর মধ্যে সাজা ভোগ করা সময় শেষ হয়ে যাবে, অথচ আপিল শুনানি হবে না-এ রকম কোনো ঘটনা ঘটেনি। অথচ আপিলটার শিগগিরই শুনানি করা সম্ভব।

খালেদা জিয়ার সাজা নিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘তার বয়স এবং সামাজিক মর্যাদার যে বিষয়গুলো হাইকোর্ট বিবেচনায় নিয়েছে, সে বিষয়ে আমরা বলেছি, তাকে ১০ বছরই সাজা দেওয়ার কথা। কিন্তু বয়স, সামাজিক মর্যাদার চিন্তা করেই নিম্ন আদালত তাকে পাঁচ বছর সাজা দিয়েছে। যে বিবেচনা করে নিম্ন আদালত সাজা কমিয়ে দিয়েছে, সেই একই বিবেচনা করে হাইকোর্ট তাকে জামিন দিয়েছে।
সবচেয়ে বড় কথা হলো, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থেকে যারা দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত হন, আদালত কঠোরভাবে তার বিচার করে। বিভিন্ন দেশে দেখা গেছে যে, রাষ্ট্রনায়করা দেশ থেকেই পালিয়ে গেছেন দণ্ড ভয়ে বা দণ্ড এড়ানোর জন্য। এখানে যে পাঁচ বছর সাজা দেওয়া হয়েছে, এই পাঁচ বছরের মধ্যে মাত্র দুই মাস-আড়াই মাস গেছে। অন্য একজন হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ। তারও পাঁচ বছর সাজা হয়েছিল। তাকে সাড়ে তিন বছর সাজা ভোগ করতে হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় বিদেশের কিছু নজির তুলে ধরে মাহবুবে আলম বলেন, ‘উপমহাদেশের আরেকজনের প্রসঙ্গ টেনেছি। তিনি লালু প্রসাদ যাদব। পশুখাদ্যে ৮৯ লক্ষ টাকা দুর্নীতির অভিযোগে তাকে সাড়ে তিন বছরের জেল দেওয়া হয়েছে। কয়েক দিন আগে ঝাড়খন্ড হাইকোর্ট তাকে জামিন দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

যেখানে নাকি এতিমদের অর্থ আত্মসাৎ হয়ে যাবে, সেখানে জামিন দেওয়া সঠিক হবে না। আরেকটা কথা বলেছি, এই ট্রাস্টের টাকা উঠানো বা জমা দেওয়ার বিষয়ে তিনি কিছুই জানতেন না। কিন্তু আদালত সাক্ষ্যের ভিত্তিতে ভালোভাবে পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্তে এসেছে। ফলে তিনি কিছু জানতেনা না, এটা সঠিক না।

খালেদা জিয়ার বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘সবচেয়ে বড় কথা হলো উনি এবং উনার পুত্র তারেক রহমান একই বাড়িতে থাকতেন। যে চেকের মাধ্যমে তারেক রহমান এবং মিজানুর রহমান ছয়টি চেকের টাকাগুলো তুলে নিয়েছে, এফডিআর করেছে, এগুলোতে একেবারে অস্বীকার করার মতো কিছু নাই। ছেলে-মা একই বাড়িতে থাকবেন আর টাকা উত্তোলনের কথা উনি জানেন না, এটা অবিশ্বাস্য এবং নিম্ন আদালত এটা বিশ্বাস করেননি।

আপিলটা যদি দীর্ঘ সময় শুনানি হয়, সে ক্ষেত্রে তার জামিন বিচেনা করা যেতে পারে। আমরা বারবার বলছি আপিলটার শুনানি হোক। চার মাস সময় বেঁধে দিয়েছে হাইকোর্ট। আমি বলেছি প্রয়োজনে আরও সংক্ষিপ্ত সময় বেঁধে দেওয়া হোক আপিলের পেপারবুক তৈরি করার জন্য।


জনসভার অনুমতি পায়নি- বিএন‌পি

ভারতকে ১৬৭ রানের টার্গেট দিয়েছে টাইগাররা


এ বিভাগের আরো খবর...

মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা
উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব
আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল
রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই
একমাসে রফতানি আয় কমেছে ৩৭ কোটি মার্কিন ডলার একমাসে রফতানি আয় কমেছে ৩৭ কোটি মার্কিন ডলার
ড. কামাল প্রত্যেক দলের প্রতিনিধি চান ড. কামাল প্রত্যেক দলের প্রতিনিধি চান
৩ লাখ মানুষ বছরে ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছে- নাসিম ৩ লাখ মানুষ বছরে ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছে- নাসিম
ইরান নয় সৌদি আরবই বিশ্বের জন্য হুমকি- বেঞ্জামিন ইরান নয় সৌদি আরবই বিশ্বের জন্য হুমকি- বেঞ্জামিন
উ’ কোরিয়াকে জ্বালানী দেয়ার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করল- রাশিয়া উ’ কোরিয়াকে জ্বালানী দেয়ার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করল- রাশিয়া
ইরানের সঙ্গে চুক্তি করতে চায়- আমেরিকা ইরানের সঙ্গে চুক্তি করতে চায়- আমেরিকা

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি, ৮ কোটি মোবাইলে বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি, ৮ কোটি মোবাইলে
মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা
চারটি চরিত্রে ইশরাত রয় চৈতি চারটি চরিত্রে ইশরাত রয় চৈতি
উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব
সংসদে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বিল পাস সংসদে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বিল পাস
ফেনীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের বিজয়ী সদর ফেনীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের বিজয়ী সদর
রজনীকান্ত ও অক্ষয়-মুখোমুখি রজনীকান্ত ও অক্ষয়-মুখোমুখি
আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল
পার্টি ডাকলে সাড়া দেবো, সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত-জ্যোতি পার্টি ডাকলে সাড়া দেবো, সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত-জ্যোতি
রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার
গুদামের খাদ্যদ্রব্য পাচারে-সক্রিয় চোর সিন্ডিকেট
প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ৩০০ পৃষ্ঠার খসড়া অনুমোদন করেছে-ব্যাংকক
সড়ক শৃঙ্খলা-মূল সমস্যাটা রাজনীতিতেই: কাদের
বিশ্বের ভয়াবহ আবহাওয়া নিয়ে প্রযুক্তিগত আলোচনা চলছে
রোহিঙ্গা প্রশ্নে চীন-রাশিয়াকে-জাতিসংঘের কড়া হুুশিয়ারি!
খালেদা জিয়ার জামিন বহাল
বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে নেপালে প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগের জন্য যা পেয়েছি তা ভয়ংকর!
‘ট্যঁর দ্যে ফ্যাম’ রিপোর্ট: জার্মানিতে যৌনাঙ্গচ্ছেদে শিকার-৬৫হাজার নারী