ঢাকা, মে ২৩, ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
---
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » পরিবেশ ও জলবায়ু » জলবায়ু ও দখলের কারণেই নদীগুলো মৃত
বৃহস্পতিবার ● ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

জলবায়ু ও দখলের কারণেই নদীগুলো মৃত

---বিবিসি২৪নিউজ,শাহাদাত হোসেন:চন্দনা নদীর পানির ওপর নির্ভর করেই এক সময় প্রায় দেড় লাখ একর জমিতে ধান, গম, আখ ও পাটসহ নানা ফসল উৎপাদন করা হতো। কিন্তু খোদ নদীটিই এখন আবাদি জমিতে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে বালিয়াকান্দি উপজেলার রামদিয়া, গোবিন্দপুর, নারায়ণপুর, নবাবপুর ও বাড়াদীসহ বিভিন্ন স্থানে নদীর মধ্যে ইরি আবাদ করতে দেখা গেছে।রাজবাড়ীর পাংশা, বালিয়াকান্দি ও কালুখালী উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত চন্দনা নদীতে এখন ধানের আবাদ করছেন স্থানীয় কৃষকরা। অথচ এক সময়ের খরস্রোতা নদীটি দিয়ে পণ্যবাহী নৌযান নিয়ে চলাচল করতেন ঢাকা, ফরিদপুর ও বরিশাল অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা। নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন বহু মত্স্যজীবী।

স্থানীয়রা জানান, লাগামহীন দখলের কারণেই নদীটির এ দুর্দশা। তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় বর্ষা মৌসুমেও পানি থাকে না। এ অবস্থায় প্রায় নদীজুড়েই কৃষকরা ধান আবাদ করছেন। নদীতে পানি না থাকায় অনেকেই সেচের ব্যবস্থা করেছেন।

বালিয়াকান্দি উপজেলার বাড়াদী গ্রামের বেশ কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, চন্দনা নদী এখন মরা খাল। বর্ষার সময় একটু পানি থাকলেও অন্য সময়ে নদীটি পুরোপুরি শুকিয়ে যায়। এ সুযোগে নদীপাড়ের মানুষ ধানসহ বিভিন্ন ধরনের সবজি আবাদ করেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) রাজবাড়ীর সহকারী প্রকৌশলী নুরুন্নবী জানান, চন্দনা নদীর দুই পাড় স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে কিছু বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে। তাদের তালিকা তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে। খুব শিগগিরই স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় অভিযান চালিয়ে নদীটি দখলমুক্ত করা হবে।বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুম রেজা জানান, চন্দনা নদীর বিভিন্ন অংশ প্রভাবশালীরা দখল করেছে। এখনো দখলের চেষ্টা চলছে।

এরই মধ্যে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চন্দনা নদীর ম্যাপ ও সীমানা নির্ধারণের কাজ শুরু করা হয়েছে।


পরমাণু সমঝোতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ- গুতেরেস

সঞ্জয়ের বায়োপিকের নাম ‘দত্ত’ থেকে ‘সঞ্জু’ কেন?


এ বিভাগের আরো খবর...

বায়ুদূষণের জন্য জরিমানার মুখে জার্মানিসহ ইইউ-র ছ’টি দশ! বায়ুদূষণের জন্য জরিমানার মুখে জার্মানিসহ ইইউ-র ছ’টি দশ!
“প্যারিস চুক্তির লক্ষ্য পূরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ “প্যারিস চুক্তির লক্ষ্য পূরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ
বন জলবায়ু আলোচনায় যে সিদ্ধান্ত হয়েছে বন জলবায়ু আলোচনায় যে সিদ্ধান্ত হয়েছে
জলবায়ু পরিবর্তনে প্যারিস চুক্তির সাথে চারশো বড় কোম্পানি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনে প্যারিস চুক্তির সাথে চারশো বড় কোম্পানি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে
জাতিসংঘ জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে ফ্রান্সিসকোতে বসবে-জি সিএএস জাতিসংঘ জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে ফ্রান্সিসকোতে বসবে-জি সিএএস
“জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়া প্রয়োজন-এন্ডালাই “জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়া প্রয়োজন-এন্ডালাই
গাইবান্ধাতে ক্ষতিগ্রস্ত ধানক্ষেত, দিশেহারা কৃষক গাইবান্ধাতে ক্ষতিগ্রস্ত ধানক্ষেত, দিশেহারা কৃষক
জলবায়ু ও দখলের কারণেই নদীগুলো মৃত জলবায়ু ও দখলের কারণেই নদীগুলো মৃত
হাওড়ের ফলন ১০ শতাংশ নষ্ট হওয়ার শঙ্কা হাওড়ের ফলন ১০ শতাংশ নষ্ট হওয়ার শঙ্কা
চাষের জন্য পঞ্চগড় অত্যন্ত সম্ভানাময় এলাকা চাষের জন্য পঞ্চগড় অত্যন্ত সম্ভানাময় এলাকা

সর্বাধিক পঠিত

চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের
প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি
বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে
অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই
অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ
দুই মামলায় খালেদার জামিন শুনানি আগামীকাল পর্যন্ত মুলতবি দুই মামলায় খালেদার জামিন শুনানি আগামীকাল পর্যন্ত মুলতবি
পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে! পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে!
সুহানার ১৮ তম জন্মদিনে শাহরুখ-গৌরির বিশেষ পরিকল্পনা! সুহানার ১৮ তম জন্মদিনে শাহরুখ-গৌরির বিশেষ পরিকল্পনা!
তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ
অসহনীয় যানজট নিরসনে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিন?
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশযাত্রা বাংলাদেশের জন্য মাইলফলক
বন জলবায়ু আলোচনায় যে সিদ্ধান্ত হয়েছে
জলবায়ু পরিবর্তনে প্যারিস চুক্তির সাথে চারশো বড় কোম্পানি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে
আবারও অশান্ত হয়ে উঠছে পাহাড়ি এলাকা?
কিম-মুনের ঐতিহাসিক বৈঠক-গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে!
অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রাজধানীবাসীকে
বিড়ি শিল্পে তামাকের ভয়াবহতা আর শিশুশ্রম বাড়ছে
প্লাস্টিক বিপর্যয়ের মুখে বাংলাদেশ, খাবারে ঢুকে পড়ছে প্লাস্টিক !
শিক্ষাকে কখনো পণ্য হিসেবে বিবেচনা করা উচিত নয়