ঢাকা, জানুয়ারী ২১, ২০১৯, ৮ মাঘ ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » কিম-মুনের ঐতিহাসিক বৈঠক-গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে!
বুধবার ● ২ মে ২০১৮, ৮ মাঘ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

কিম-মুনের ঐতিহাসিক বৈঠক-গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে!

---এমডি জালাল:কিম ও মুনের এ বৈঠকের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ৬৮ বছর পর কোরিয়া যুদ্ধের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তির ঘোষণা এলো। ১৯৫০ থেকে ৫৩ সাল পর্যন্ত প্রলয়ংকরী এক যুদ্ধের পর শান্তি চুক্তির মধ্য দিয়ে দুই কোরিয়া পৃথক হয়। তারপর থেকে উত্তর কোরিয়া একের পর দক্ষিণ কোরিয়া, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিয়ে আসছিল।

উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইনের ঐতিহাসিক বৈঠকে গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে বলে আশা করছে গোটা বিশ্বের নেতারা।সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত উত্তর ও দক্ষিণ- দুই কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পর্যায়ের বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সকালে দুই কোরিয়া সীমান্তের পানমুনজমে শুরু হওয়া বৈঠক বিকালে শেষ হয়।

ঐতিহাসিক বৈঠকটির মধ্য দিয়ে চিরবৈরী দুই প্রতিবেশী দেশের অমীমাংসিত অনেক বিষয়ের যেমন নিষ্পত্তি হতে যাচ্ছে, তেমনি কোরীয় অঞ্চলসহ গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে বলে আশা করা যায়।
বৈঠক শেষে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা থেকেও আশার বাণী এসেছে। দুই কোরিয়ায় শান্তি প্রতিষ্ঠায় এবং ওই অঞ্চলসহ গোটা বিশ্বে পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি বন্ধে আলোচিত বৈঠকটি প্রভাব ফেলবে বলে আমরা আশাবাদী।

একই সঙ্গে পারমাণবিক অস্ত্র থেকে শুরু করে নানা ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে গোটা বিশ্বকেই ব্যতিব্যস্ত করছিল। শেষ পর্যন্ত দুই কোরিয়ার বৈঠকের মধ্য দিয়ে বৈরিতার অবসান এবং শান্তি-সমৃদ্ধি ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে দুই প্রেসিডেন্ট একমত হয়েছেন।
আশার কথা, কোরীয় উপদ্বীপকে সম্পূর্ণরূপে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের এক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে দেশ দুটি। এ বছরের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ ও আন্তর্জাতিক পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়েও তারা একমত হয়েছেন।

বস্তুত, গত বছর যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া হুমকি-পাল্টাহুমকির মধ্য দিয়ে পরমাণু যুদ্ধের আশঙ্কা তৈরি হয়। সে পরিস্থিতি থেকে আলোচনার টেবিলে কিম জং উনকে ফিরিয়ে আনা এবং পরমাণু কর্মসূচি থেকে বিরত রাখা অবশ্যই বড় ধরনের ঘটনা।

যারা এর পেছনে কলকাঠি নেড়েছেন, আমরা তাদের সবাইকে অভিনন্দন জানাই। মূলত, ট্রাম্পের সঙ্গে কিমের সম্ভাব্য বৈঠকের বিষয়টি আলোচনায় আসার পর প্রথমে চীন এবং পরে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে ফলপ্রসূ বৈঠক করেছেন কিম। এখন ট্রাম্প-কিম ভবিষ্যৎ বৈঠকের ফলাফলের ওপর অনেক কিছু নির্ভর করবে।
তবে সবার উচিত হবে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ ও শান্তির পথের এ সূচনা যেন কোনোভাবেই ব্যাহত না হয়, তা নিশ্চিত করা। দুই কোরিয়া এক হোক বা না হোক, উভয়ে শান্তিতে বসবাস করলে এবং এ অঞ্চল যুদ্ধের হুমকিমুক্ত হলেই এ বৈঠক চূড়ান্ত বিচারে ফলপ্রসূ বলে বিবেচিত হবে।


বিকেল ৩টা থেকে নৌ-চলাচল বন্ধ!

সারা দেশে বজ্রপাতে নিহত ৭


এ বিভাগের আরো খবর...

বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয় খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ
মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে! মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে!
সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে? ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?
মহাজোটের মহাজয়ে শেখ হাসিনা মহাজোটের মহাজয়ে শেখ হাসিনা
বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন! বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
ইশতেহার নয়, কাজে বিশ্বাস করে দেশবাসী ইশতেহার নয়, কাজে বিশ্বাস করে দেশবাসী
নেইমারের সমালোচনায় পেলে নেইমারের সমালোচনায় পেলে

সর্বাধিক পঠিত

আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক
বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি
ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২ ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২
ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস
বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা
রাতভর নেচে অসুস্থ বিপাশা রাতভর নেচে অসুস্থ বিপাশা
বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ
প্রচণ্ড শীত ও ঘন কুয়াশায় ৩১ রোহিঙ্গা শূন্যরেখায় প্রচণ্ড শীত ও ঘন কুয়াশায় ৩১ রোহিঙ্গা শূন্যরেখায়
বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ
মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে!
সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?
মহাজোটের মহাজয়ে শেখ হাসিনা
বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
নেইমারের সমালোচনায় পেলে
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে