ঢাকা, মে ২৩, ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
---
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » বিশেষ প্রতিবেদন » সাবধান না হলে ব্যাংকের তারল্য সংকট আরো বাড়বে
বুধবার ● ১৬ মে ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

সাবধান না হলে ব্যাংকের তারল্য সংকট আরো বাড়বে

---বিবিসি২৪নিউজ,বিশেষ প্রতিনিধি:দেশের ব্যাংকগুলোর আমানত বাড়ছে না, বিতরণকৃত ঋণ যেভাবে বাড়ছে। এ অবস্থায় সাবধান না হলে ব্যাংকিং খাতে তারল্য সংকট আরো প্রকট হবে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) এক গবেষণা প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে।বিআইবিএমের উদ্যোগে ‘ট্রেজারি অপারেশনস অব ব্যাংকস’ শীর্ষক বার্ষিক পর্যালোচনা কর্মশালায় গতকাল গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করা হয়। এতে বলা হয়, ঋণের প্রবৃদ্ধি যে হারে বাড়ছে, তার অনেক কম হারে বাড়ছে আমানত।২০১৫ সালের জুনে ঋণ প্রবৃদ্ধি ছিল ১২ দশমিক ৭ শতাংশ আর আমানত প্রবৃদ্ধি ১২ দশমিক ৬ শতাংশ। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ঋণের প্রবৃদ্ধি যখন ১৮ দশমিক ১ শতাংশ, তখন আমানতের প্রবৃদ্ধি ১০ দশমিক ৬ শতাংশ। এ অবস্থা চলতে থাকলে তারল্য সংকট আরো বাড়বে।রাজধানীর মিরপুরে বিআইবিএম অডিটোরিয়ামে এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ও বিআইবিএম নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান। সভাপতিত্ব করেন বিআইবিএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমদ চৌধূরী। স্বাগত বক্তব্যে বিআইবিএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমদ চৌধূরী কর্মশালার উদ্দেশ্য তুলে ধরেন এবং দক্ষ ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় গুরুত্বারোপ করেন।

কর্মশালায় প্রতিবেদন উপস্থাপন করে বিআইবিএমের অধ্যাপক মো. নেহাল আহমেদের নেতৃত্বে চার সদস্যের গবেষক দল। এতে অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন বিআইবিএমের প্রভাষক রিফাত জামান সৌরভ, ইস্টার্ন ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও হেড অব ট্রেজারি মেহেদী জামান এবং ব্যাংক এশিয়ার এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও হেড অব ট্রেজারি আরেকুল আরেফিন।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ব্যাংকের ট্রেজারি ব্যবস্থাপনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংককে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। বর্তমানে ডলারের দাম একটু ঊর্ধ্বমুখী। বাংলাদেশ ব্যাংক পুরো বিষয়টি নজরদারি করছে, যাতে এটি আর না বাড়ে।মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনের সময় অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে বর্তমানে অ্যাডভান্স ডিপোজিট (এডি) রেশিও ৮৪ দশমিক ৭ শতাংশ। ট্রেজারি ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে না হলে ২০১৯ সালের মার্চের মধ্যে এডি রেশিও ৮৩ দশমিক ৫ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্য পূরণ হবে না।

আলোচনায় অংশ নিয়ে অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা বলেন, ব্যাংকাররা ব্যাংকের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। তারা ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় আরো দক্ষতার পরিচয় না দিলে পুরো ব্যাংকিং খাত ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

অধ্যাপক হেলাল আহমদ চৌধুরী বলেন, সাধ্যের বাইরে ঋণপত্র খুলে বিভিন্ন ব্যাংক পরবর্তী সময়ে বৈদেশিক মুদ্রা সংস্থানের জন্য অন্য ব্যাংক থেকে তহবিল চায়। এর ফলে বাজারে ডলারের ওপর চাপ পড়ে। ডলারের দাম ঊর্ধ্বমুখী হয়। ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় কর্মরত কর্মীদের ব্যাংকের উচ্চ পর্যায়ের কাছে সঠিক তথ্য দিতে হবে। এটি না করলে বাজারে বিশৃঙ্খলা তৈরি হবে।স্প্রেড ৫ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনার ওপর জোর দেন অধ্যাপক ইয়াছিন আলি। তিনি বলেন, বন্ড মার্কেট উন্নয়নে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। করপোরেট প্রতিষ্ঠানের জন্য সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ নিষিদ্ধ থাকা প্রয়োজন বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।

সমাপনী বক্তব্যে বিআইবিএমের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) ড. শাহ মো. আহসান হাবীব বৈশ্বিক তারল্য গতিবিধির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ট্রেজারি ব্যবস্থাপনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

মো. আলী হোসেন প্রধানিয়া বলেন, ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় ভুল নীতির কারণে রাষ্ট্রায়ত্ত কয়েকটি ব্যাংক ২০০৭ সালে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ কারণে ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় কোনো ভুল করলে চলবে না।আহমেদ কামাল খান চৌধুরী বলেন, ট্রেজারি ব্যবস্থাপনায় জড়িত ব্যাংকারদের ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ এবং শীর্ষ ব্যক্তিদের সঠিক তথ্য সরবরাহ করতে হবে। এতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহজ হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিআইবিএমের মুজাফফর আহমেদ চেয়ার প্রফেসর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা, বিআইবিএমের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) ড. শাহ মো. আহসান হাবীব, পূবালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক হেলাল আহমদ চৌধুরী, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক নির্বাহী পরিচালক ও বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক ইয়াছিন আলি, কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আলী হোসেন প্রধানিয়া, প্রাইম ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহমেদ কামাল খান চৌধুরী, বিআইবিএমের অনুষদ সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ বারিকুল্লাহ।


তিন ইউরোপীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করলেন- জারিফ

সাভারের আমিনবাজারে দুই মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু


এ বিভাগের আরো খবর...

চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের
প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি
বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে
অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ
তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ
ডিজিটাল আইনে অসঙ্গতি দূর করার আশ্বাস? ডিজিটাল আইনে অসঙ্গতি দূর করার আশ্বাস?
পাল্টা আক্রমণ করায় মাদক ব্যবসায়ীরা নিহত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পাল্টা আক্রমণ করায় মাদক ব্যবসায়ীরা নিহত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
পদ্মাসেতুর রেলসংযোগসহ ১৬ প্রকল্পের অনুমোদন পদ্মাসেতুর রেলসংযোগসহ ১৬ প্রকল্পের অনুমোদন
ঈদে ৪ দিন সিএনজি স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে- কাদের ঈদে ৪ দিন সিএনজি স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে- কাদের

সর্বাধিক পঠিত

চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের চীন-উত্তর কোরীয় সীমান্তে কড়া নজরদারির আহবান ট্রাম্পের
প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর প্রাথমিকে ট্রাফিক আইন শিক্ষার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি ডিজিটালআইন নিয়ে উদ্বেগ দূর করার প্রতিশ্রুতি
বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে বিশেষ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা আগামী জুলাইয়ে
অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই
অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ অর্থপাচারের অভিযোগে নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ
দুই মামলায় খালেদার জামিন শুনানি আগামীকাল পর্যন্ত মুলতবি দুই মামলায় খালেদার জামিন শুনানি আগামীকাল পর্যন্ত মুলতবি
পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে! পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে!
সুহানার ১৮ তম জন্মদিনে শাহরুখ-গৌরির বিশেষ পরিকল্পনা! সুহানার ১৮ তম জন্মদিনে শাহরুখ-গৌরির বিশেষ পরিকল্পনা!
তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ তদন্তেই প্রকৃত সত্য বের হবে- এ কে আজাদ
অসহনীয় যানজট নিরসনে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিন?
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশযাত্রা বাংলাদেশের জন্য মাইলফলক
বন জলবায়ু আলোচনায় যে সিদ্ধান্ত হয়েছে
জলবায়ু পরিবর্তনে প্যারিস চুক্তির সাথে চারশো বড় কোম্পানি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে
আবারও অশান্ত হয়ে উঠছে পাহাড়ি এলাকা?
কিম-মুনের ঐতিহাসিক বৈঠক-গোটা বিশ্বে এটি শান্তির পরিবেশ তৈরি করবে!
অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রাজধানীবাসীকে
বিড়ি শিল্পে তামাকের ভয়াবহতা আর শিশুশ্রম বাড়ছে
প্লাস্টিক বিপর্যয়ের মুখে বাংলাদেশ, খাবারে ঢুকে পড়ছে প্লাস্টিক !
শিক্ষাকে কখনো পণ্য হিসেবে বিবেচনা করা উচিত নয়