ঢাকা, আগস্ট ১৮, ২০১৮, ৩ ভাদ্র ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » ঈদে দেশীয় পোশাক জায়গা করতে পারছে না কেন?
মঙ্গলবার ● ৫ জুন ২০১৮, ৩ ভাদ্র ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

ঈদে দেশীয় পোশাক জায়গা করতে পারছে না কেন?

---বিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব প্রতিবেদক: গত কয়েক দশকে বাংলাদেশে গড়ে উঠেছে অনেক ফ্যাশন হাউজ। উদ্যোক্তারা বলছেন, ঢাকা ও ঢাকার বাইরে ফ্যাশন হাউজের সংখ্যা ৫০ হাজারের বেশি । বড় বড় উৎসবকে সামনে রেখে সেসব ফ্যাশন হাউজ দেশের ডিজাইনারদের তৈরি নতুন নতুন ধরনের নকশার পোশাক নিয়ে আসে। যেমনটা এবারও ঈদকে সামনে রেখে এসেছে। ঈদে নতুন নতুন পোশাক বাজারে নিয়ে আসে বাংলাদেশের ফ্যাশন হাউজগুলো। সারাবছরে বিভিন্ন উৎসবকে ঘিরে ব্যবসা চললেও, এই সময়টাকে লক্ষ্য করেই চলে তাদের মূল আয়োজন। কিন্তু ফ্যাশন উদ্যোক্তারা বলছেন, যেখানে ঈদের সময় প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকার ব্যবসা চলে, সেখানে দেশীয় পোশাক থেকে আসে মাত্র চার হাজার কোটি টাকা। বাকি পুরোটাই চলে ভারতীয় এবং পাকিস্তানী পোশাকের আধিপত্য।

দেশীয় ফ্যাশন হাউজে কিনতে আসা ক্রেতাদের কথায় উঠে আসে সাধারণত্ব এবং আরামবোধের বিষয়টি। কিন্তু অনেক ক্রেতার কাছে পোশাক বাছাইয়ে এরচেয়ে বড় বিবেচ্য-পোশাকের চাকচিক্য ও নকশা।ফলে তাদের কাছে অগ্রাধিকার পাচ্ছে বিদেশী কাপড়ের পোশাক।

বসুন্ধরা সিটি, বনানী সুপার মার্কেট কিংবা পিংক সিটি সহ অনেক মার্কেটের বহু দোকান এখন ভারতীয় ড্রেসে সয়লাব। এরপরেই আছে পাকিস্তানের কাপড়। তাছাড়া চাইনিজ কাপড়ও বিক্রি কচ্ছে।

কয়েকজন ক্রেতা বলছিলেন, দেশীয় বুটিকের কাপড় তুলনামূলক ‘সিম্পল’ বলে মনে হয় তাদের কাছে যা তাদের ভাষায় ততটা ‘গর্জিয়াস’ নয়।

যদিও বাংলা বর্ষবরণ, কিংবা একুশে ফেব্রুয়ারি ইত্যাদিকে সামনে রেখে দেশীয় কাপড় বা পোশাকের বাজারটি বেশ জমে ওঠে, কিন্তু ব্যবসায়ীদের প্রধান টার্গেট থাকে মূলত ঈদ উল ফিতরকে ঘিরে। সেখানে ভারতীয় বা পাকিস্তানী কাপড়ের প্রতি এই আগ্রহ দেশের বুটিক শিল্পকে হুমকির মুখে ফেলছে, বলছেন বুটিক হাউজ বিবিয়ানার সত্ত্বাধিকারী ও ডিজাইনার লিপি খন্দকার।

আসলে মার্কেটটা এখন এত ওপেন হয়ে গেছে, এমনকি ওইসব দেশ থেকে বিশেষ করে ইন্ডিয়া থেকে লোকজন এসে হোটেল ভাড়া করে পুরোদমে বিজনেস করে, এই সিজনটাতে কাজে লাগিয়ে তারা চলে যাচ্ছে।”

বাংলাদেশের ফ্যাশন হাউজগুলোর সংগঠন ফ্যাশন উদ্যোগের এক জরিপের তথ্য অনুসারে ঈদকে কেন্দ্র করে প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকার ব্যবসা হয়। সেখানে দেশের বুটিক হাউজগুলোর ব্যবসা মাত্র চার হাজার কোটি টাকার মতো। তার মানে বাকিটা বিদেশের কাপড় আর পোশাকের দখলে।

বাংলাদেশের বাজার নিয়ন্ত্রণ বিক্রেতারা বলছেন, ক্রেতাদের চাহিদা থাকায় তারা ভারতীয় বা পাকিস্তানী পোশাক আনছেন। ক্রেতারা বিভিন্ন অনলাইন এবং টেলিভিশন দেখে এসবের খোজ করছেন।


যৌথ বিবৃতিতে ‘চাপ প্রয়োগ’ ব্যবহারে যুক্তরাষ্ট্রের অনীহা

সৌদি সরকার নারীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দিচ্ছে


এ বিভাগের আরো খবর...

মোদির পথে হাঁটলেন ইমরান খান মোদির পথে হাঁটলেন ইমরান খান
মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকছে, বাকী সব বাতিল- নাসিম মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকছে, বাকী সব বাতিল- নাসিম
যাত্রীদের চাপ এখনো পুরোপুরি নেই? যাত্রীদের চাপ এখনো পুরোপুরি নেই?
প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি যুগে প্রবেশ করল- বাংলাদেশ প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি যুগে প্রবেশ করল- বাংলাদেশ
জামিন পেতে ‘ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড’ জামিন পেতে ‘ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড’
সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনান আর নেই সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনান আর নেই
নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে সরেজমিনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে সরেজমিনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব
ইরান তৈরী করবে এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র ইরান তৈরী করবে এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র
যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছানো আমাদের চ্যালেঞ্জ- আমজাদ হোসেন যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছানো আমাদের চ্যালেঞ্জ- আমজাদ হোসেন
সাংবিধানিক প্রক্রিয়া থেকে সরে আসার সুযোগ নেই- কাদের সাংবিধানিক প্রক্রিয়া থেকে সরে আসার সুযোগ নেই- কাদের

সর্বাধিক পঠিত

মোদির পথে হাঁটলেন ইমরান খান মোদির পথে হাঁটলেন ইমরান খান
মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকছে, বাকী সব বাতিল- নাসিম মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকছে, বাকী সব বাতিল- নাসিম
যাত্রীদের চাপ এখনো পুরোপুরি নেই? যাত্রীদের চাপ এখনো পুরোপুরি নেই?
নেইমারের জন্য ২৯০০ কোটি টাকা দিতে রাজি রিয়াল! নেইমারের জন্য ২৯০০ কোটি টাকা দিতে রাজি রিয়াল!
প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি যুগে প্রবেশ করল- বাংলাদেশ প্রাকৃতিক গ্যাস এলএনজি যুগে প্রবেশ করল- বাংলাদেশ
জামিন পেতে ‘ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড’ জামিন পেতে ‘ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড’
সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনান আর নেই সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনান আর নেই
নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে সরেজমিনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে সরেজমিনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব
ইরান তৈরী করবে এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র ইরান তৈরী করবে এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র
যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছানো আমাদের চ্যালেঞ্জ- আমজাদ হোসেন যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছানো আমাদের চ্যালেঞ্জ- আমজাদ হোসেন
বিশ্বের বসবাসের জন্য অযোগ্য শহর ঢাকা কেন?
অবশেষে খুঁজে পাওয়া গেল এলিয়েন?
তৃতীয় লিঙ্গদের আইনি স্বীকৃতি দিল-জার্মান
রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত দিতে পারে-ট্রাম্প প্রশাসন
খেলাপি ঋণের বৃত্তে ব্যাংকিং খাত
বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলোতে বিদেশি ছবির হিড়িক
জার্মানের নদীতে ভেসে উঠছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অস্ত্র-শস্ত্র
জলবায়ু পরিবর্তনে-নিউ ইয়র্ক ও সিডনির কোন দ্বীপে বসতি থাকবে না
পরীক্ষার খাতায় ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ লিখলেন শিক্ষার্থীরা!
শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ফায়দা লুঠতে ব্যস্ত কারা!