ঢাকা, মার্চ ২৩, ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » খালেদাকে বন্দি রেখে নির্বাচন হবে না- ফখরুল
সোমবার ● ৯ জুলাই ২০১৮, ৯ চৈত্র ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

খালেদাকে বন্দি রেখে নির্বাচন হবে না- ফখরুল

---বিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব প্রতিবেদক:বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে দেশে কোনো নির্বাচন সম্ভবপর হবে না বলে সরকারকে হুঁশিয়ার করেছেন।খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত করার প্রতিবাদে এবং তার মুক্তির দাবিতে সোমবার ঢাকার গুলিস্থানের মহানগর নাট্য মঞ্চে বিএনপির ‘প্রতীক’ অনশনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত করার প্রতিবাদে এবং তার মুক্তির দাবিতে সোমবার ঢাকার গুলিস্থানের মহানগর নাট্য মঞ্চে বিএনপির ‘প্রতীক’ অনশনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে দেশে কোনো নির্বাচন সম্ভবপর হবে না বলে সরকারকে হুঁশিয়ার করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।দলীয় চেয়ারপারসনের মুক্তি দাবিতে সোমবার ৭ ঘণ্টার প্রতীক অনশন কর্মসূচিতে বক্তব্যে এই হুঁশিয়ারি দেন তিনি।ঢাকার গুলিস্থানে কাজী বশির মিলনায়তনে সকাল থেকে কর্মসূচি শুরুর পর বিকালে জাফরুল্লাহ চৌধুরী ফলের রস খাইয়ে অনশন ভঙ্গ করান।কর্মসূচি চলাকালে বিএনপির বিভিন্ন নেতা বক্তব্য রাখেন। তাদের বক্তব্যে খালেদাকে বন্দি রেখে নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার পক্ষে অবস্থান নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

ফখরুল বলেন, “দীর্ঘ সময় ধরে এই অনশন কর্মসূচিতে যে সমস্ত বক্তারা বক্তব্য রেখেছেন, তাদের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে স্পষ্ট হয়ে এসেছে, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে এদেশে কোনো জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে না।

“এই অনশন কর্মসূচি থেকে আমরা দাবি করছি, অবিলম্বে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। এই দাবি আবার করছি যে, এখানে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনরায় গঠন করতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। তবেই নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হলে এদেশে নির্বাচন হবে, অন্যথায় নির্বাচন হবে না।”

নির্দলীয় সরকারের অধীনে না হওয়ায় দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছিল বিএনপি। এই বছর শেষে অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনের সময়ও ‘সহায়ক সরকারের’ দাবি তুলেছে তারা। সেই সঙ্গে খালেদার মুক্তির শর্ত যোগ করেছে।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ড নিয়ে বন্দি খালেদার মুক্তির বিষয়ে সরকারের করার কিছু নেই বলে জানিয়ে আসছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা। ‘সহায়ক সরকারের’ দাবিও নাকচ করে আসছেন তারা। ফখরুল বলেন, “বেগম খালেদা জিয়াকে আজকে সুচিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না, তার ন্যূনতম যে প্রাপ্য, সেই প্রাপ্যটুকু তাকে দেওয়া হচ্ছে না। এই সরকার তাকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখার জন্য ষড়যন্ত্র করছে। উদ্দেশ্য একটাই, বিএনপিকে নির্বাচন ও রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখা।”

বর্তমান পরিস্থিতিতে সব রাজনৈতিক ও পেশাজীবীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আজকে এদেশের মুক্তির জন্য, ১৬ কোটি মানুষের মুক্তির জন্য, মানুষের আবার গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেবার জন্য, স্বৈরাচার সরকারের হাত থেকে দেশকে বাঁচানোর জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।”

ফখরুল ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকারসহ সারাদেশে নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তি দাবি করেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, “সরকার একটাই ষড়যন্ত্র করছে। সেটা হচ্ছে দেশনেত্রীকে ছাড়া, বিএনপিকে ছাড়া, ২০ দলকে ছাড়া তারা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির প্রহসন আবার পুনরাবৃত্তি করতে চায়।

“আমরা বলতে চাই, ২০১৪ সালের সেই ষড়যন্ত্র বাংলাদেশের জনগণ আরেকবার বাস্তবায়ন হতে দেবে না। এই স্বৈরাচারের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করতে হলে আন্দোলনের বিকল্প নাই। তাই রাস্তায় আন্দোলন করেই গণতন্ত্রের মাতাকে মুক্ত করতে হবে, মুক্ত দেশনেত্রীকে নিয়েই আমরা নির্বাচনকালীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে নির্বাচনে যাব।”থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, “নিম্ন আদালত সম্পূর্ণভাবে সরকারের নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হচ্ছে যার জন্য বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি বিলম্বিত হচ্ছে। আমি এটুকু বলতে পারি, যত কৌশল করা হোক না কেন, এটা সম্ভবপর হবে না। তার কারণ একদিন না একদিন তাদের কৌশল ও ষড়যন্ত্র বন্ধ হয়ে যাবে এবং কোনো এক পর্যায়ে গিয়ে তারা দেশনেত্রীকে জামিন না দিয়ে আর পারবে না।

“যদি আইনি প্রক্রিয়ায় বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি না হয়, তার একমাত্র বিকল্প হল রাজপথ। এবার প্রস্তুতি নেন, কর্মসূচি দেওয়া হবে, সেই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে।”

স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, “পৃথিবীর বহু রাষ্ট্রনায়কের এরকম জেল হয়েছে, আবার মুক্ত হয়েছে, জামিনও হয়েছে, আবার অনেকে সংগ্রামের মাধ্যমে মুক্ত হয়েছে। আজকে দেশনেত্রীকে তিলে তিলে হত্যার করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে আমি মনে করি সবদিক থেকে।

“স্বৈরশাসক এরশাদ হাত মিলিয়েছে হাসিনার সঙ্গে। সেও লজ্জা পেয়ে গেছে, বাপরে বাপ আমি তো বাঁইচা গেলাম, আমার চেয়ে বড় স্বৈরশাসক বাংলাদেশে এখন হাজির হয়েছে। এটা আমার কথা নয়, সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখলাম।”

মিলনায়তন প্রাঙ্গণে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এই প্রতীক অনশনে কেন্দ্রীয় নেতারাসহ ঢাকা মহানগর শাখা এবং বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের কয়েক হাজার নেতা-কর্মী মাদুরে বসে অংশ নেন।


কোটা আন্দোলনে ভর করতে চাইছে বিএনপি- কাদের

তুরস্কের প্রেসিডেন্টের জন্য বাংলাদেশের উপহার ১০০ কেজি আম


এ বিভাগের আরো খবর...

২৮ বছর পর অভিষেক হলো ডাকসু কমিটির ২৮ বছর পর অভিষেক হলো ডাকসু কমিটির
চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্ত চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্ত
জাসিন্ডা আরডার্নের নোবেল পুরস্কারের পক্ষে পিটিশন জাসিন্ডা আরডার্নের নোবেল পুরস্কারের পক্ষে পিটিশন
টাইগারেদর হুট করে বিয়ের রহস্য উদঘাটন টাইগারেদর হুট করে বিয়ের রহস্য উদঘাটন
ধর্ষণ মামলার আসামির জামিন পাওয়ার রহস্য কী? ধর্ষণ মামলার আসামির জামিন পাওয়ার রহস্য কী?
নুরুল ডাকসুর ভিপির  দায়িত্ব নিচ্ছেন আজ নুরুল ডাকসুর ভিপির দায়িত্ব নিচ্ছেন আজ
আপত্তি নেই জাতিসংঘের রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে আপত্তি নেই জাতিসংঘের রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে
কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যাহতি কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যাহতি
ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে ৩-১ গোলে হারল আর্জেন্টিনা ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে ৩-১ গোলে হারল আর্জেন্টিনা
বরিশালে বাস-মাহেন্দ্র সংঘর্ষে কলেজছাত্রীসহ নিহত ৫ বরিশালে বাস-মাহেন্দ্র সংঘর্ষে কলেজছাত্রীসহ নিহত ৫

সর্বাধিক পঠিত

বিমানবন্দরে ময়লার ঝুড়িতে মিলল ৪৮ স্বর্ণের বার বিমানবন্দরে ময়লার ঝুড়িতে মিলল ৪৮ স্বর্ণের বার
যশোরে টাকা নিয়ে বিরোধে ছেলরে হাতে বাবা খুন যশোরে টাকা নিয়ে বিরোধে ছেলরে হাতে বাবা খুন
২৮ বছর পর অভিষেক হলো ডাকসু কমিটির ২৮ বছর পর অভিষেক হলো ডাকসু কমিটির
চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্ত চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্ত
বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ ছাত্রীসহ নিহত ৭ বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ ছাত্রীসহ নিহত ৭
জাসিন্ডা আরডার্নের নোবেল পুরস্কারের পক্ষে পিটিশন জাসিন্ডা আরডার্নের নোবেল পুরস্কারের পক্ষে পিটিশন
টাইগারেদর হুট করে বিয়ের রহস্য উদঘাটন টাইগারেদর হুট করে বিয়ের রহস্য উদঘাটন
কেমন যাবে আজকের দিনটি ? কেমন যাবে আজকের দিনটি ?
হাসুন প্রান খুলে: হাসতে নেই মানা হাসুন প্রান খুলে: হাসতে নেই মানা
আজকের ধাঁধা বলুন দেখি দাদা আজকের ধাঁধা বলুন দেখি দাদা
প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা তৈরি করতে পারছে না কেন?
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক বিশ্বে একটি রোল মডেল?
সীমাহীন দুর্নীতিগ্রস্ত বিমান
নানা সমস্যায় জর্জরিত ব্যাংকিং খাত!
উত্তপ্ত কাশ্মীর সমস্যার স্থায়ী সমাধান প্রয়োজন!
দেশকে দ্রুত উন্নতির জন্য কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই!
প্রধানমন্ত্রীর জার্মানি সফর উন্নয়ন- কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার হবে!
খেলাপি ঋণে ‘জিরো টলারেন্স’ চাই
৫ জনই ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতা
দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রকৃত অর্থেই নিতে হবে জিরো টলারেন্স