ঢাকা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » পরিবেশ ও জলবায়ু » রোগীদের মেয়াদোত্তীর্ণ উপাদান দিয়ে অস্ত্রোপচার কতটা ঝুঁকিপূর্ণ?
মঙ্গলবার ● ১০ জুলাই ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

রোগীদের মেয়াদোত্তীর্ণ উপাদান দিয়ে অস্ত্রোপচার কতটা ঝুঁকিপূর্ণ?

---এম ডি জালাল: চট্টগ্রামে ম্যাক্স হাসপাতালে অনিয়ম ও জালিয়াতির প্রমাণ পাওয়ায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেন।র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের বক্তব্য উদ্ধৃত করে উল্লেখ করা হয়েছে, অখ্যাত ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নমুনা পরীক্ষা করিয়ে সেগুলো ম্যাক্স হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্যাডে প্রিন্ট করিয়ে রোগীদের দেয়া হতো এবং এর জন্য বাড়তি অর্থ নেয়া হতো।স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিনিধি এবং ওষুধ প্রশাসনের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান পারিচালনাকালে ম্যাক্স হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে অনুমোদনহীন ওষুধ পেয়েছেন।এছাড়া অস্ত্রোপচারের কাজে ব্যবহৃত মেয়াদোত্তীর্ণ কিছু সার্জিক্যাল আইটেমও পেয়েছেন।এর কারনে চট্টগ্রামে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কিছু অসাধু ব্যবসায়িরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়।

চট্টগ্রামে এক সাংবাদিকের শিশুকন্যার মৃত্যুতে অভিযুক্ত ম্যাক্স হাসপাতালকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করার প্রতিবাদে এ ধর্মঘট ডাকা হয়েছিল।মেয়াদোত্তীর্ণ উপাদান দিয়ে অস্ত্রোপচার করা কতটা ঝুঁকিপূর্ণ তা সহজেই অনুমান করা যায়। প্রশ্ন হল, মেয়াদোত্তীর্ণ উপাদান দিয়ে অস্ত্রোপচারের সময় চিকিৎসকরা প্রতিবাদ করেননি কেন? এতে এটাই স্পষ্ট, এর সঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক উভয়েই জড়িত।

দুঃখজনক হল, র‌্যাবের অভিযানের প্রতিবাদে চট্টগ্রামে ‘বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান সমিতি’ ধর্মঘট কর্মসূচি ঘোষণা করেছিল। যেখানে এ ঘটনার জন্য চট্টগ্রামের সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের লজ্জা পাওয়া উচিত, সেখানে তারা রোগীদের জিম্মি করে ধর্মঘট কর্মসূচি পালন করেন কীভাবে? এতে চট্টগ্রামের রোগীদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। টানা ২০ ঘণ্টা রোগীদের ভুগিয়ে ধর্মঘট স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছেন বেসরকারি হাসপাতাল ও চিকিৎসাসেবা কেন্দ্রের মালিকরা।

আমরা মনে করি, দেশের অন্যান্য চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানেও রোগীদের পরীক্ষার নামে জালিয়াতির আশ্রয় নেয়া হয় কিনা, তা জরুরি ভিত্তিতে তদন্ত করে দেখা দরকার। তা না হলে চিকিৎসাসেবা নিতে গিয়ে রোগীদের বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে। দেশের চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কতটা মানসম্মত সেবা প্রদান করছে, তা যাচাই করার জন্য বছরব্যাপী নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা দরকার।

সেবার কথা বলে যেসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রতারণার আশ্রয় নেয় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত। মনে রাখা দরকার, কোনো চিকিৎসক সামান্য অমনোযোগী হলে কিংবা সেবামূলক কোনো প্রতিষ্ঠানে সামান্য ত্র“টি থাকলে রোগীর জীবন বিপন্ন হতে পারে।

চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কোনো অজুহাতেই কর্মবিরতির মতো কর্মসূচি পালন করা উচিত নয়। সেবার প্রতিশ্র“তি দিয়েই প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ও প্রত্যেক ব্যক্তি চিকিৎসাসেবার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। কাজেই কথায় কথায় কর্মবিরতির মতো কর্মসূচি ঘোষণার আগে তাদের ভাবা উচিত এতে দ্রুত পরির্বতন আনতে হবে।


ফ্রান্সের ফুটবলার অঁরি বেলজিয়ামের বেঞ্চে!

২০১৯ সাল থেকে পূর্বাচলে বাণিজ্যমেলা


এ বিভাগের আরো খবর...

জলবায়ু নিয়ে বড় বিপর্যয়ের ঝুঁকি দেখছেন বিজ্ঞানীরা জলবায়ু নিয়ে বড় বিপর্যয়ের ঝুঁকি দেখছেন বিজ্ঞানীরা
ভারতে সত্তর বছরের নারীকে ধর্ষণ! ভারতে সত্তর বছরের নারীকে ধর্ষণ!
প্রথম পর্যটক হিসেবে চাঁদে যাবেন জাপানের এক কোটিপতি প্রথম পর্যটক হিসেবে চাঁদে যাবেন জাপানের এক কোটিপতি
শীর্ষ ধনীরা নামকরা সংবাদপত্র কিনে নিচ্ছে কেন? শীর্ষ ধনীরা নামকরা সংবাদপত্র কিনে নিচ্ছে কেন?
২৩ হাজার পোস্ট-মর্টেম করেছেন ডা. রিচার্ড শেফার্ড ২৩ হাজার পোস্ট-মর্টেম করেছেন ডা. রিচার্ড শেফার্ড
রোবট কেড়ে নেবে ৭ কোটি মানুষের কাজ! রোবট কেড়ে নেবে ৭ কোটি মানুষের কাজ!
উদ্ভাবনী শক্তিতে সবার পিছনে কেন বাংলাদেশ? উদ্ভাবনী শক্তিতে সবার পিছনে কেন বাংলাদেশ?
গাঁজার পানীয় তৈরিতে আগ্রহী কেন কোকা-কোলা? গাঁজার পানীয় তৈরিতে আগ্রহী কেন কোকা-কোলা?
অবৈধ হাসপাতালগুলো আদালতের নির্দেশ মানছে না কেন? অবৈধ হাসপাতালগুলো আদালতের নির্দেশ মানছে না কেন?
অস্ট্রেলিয়ায় ‘স্ট্রবেরিতে আতংক! অস্ট্রেলিয়ায় ‘স্ট্রবেরিতে আতংক!

সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি, ৮ কোটি মোবাইলে বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৯ কোটি, ৮ কোটি মোবাইলে
মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা মুসলিমদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মোদি সরকারের স্বৈরাচারী পন্থা
চারটি চরিত্রে ইশরাত রয় চৈতি চারটি চরিত্রে ইশরাত রয় চৈতি
উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব উ’ কোরিয়ার সাথে আলোচনা ফের শুরু করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব
সংসদে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বিল পাস সংসদে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বিল পাস
ফেনীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের বিজয়ী সদর ফেনীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের বিজয়ী সদর
রজনীকান্ত ও অক্ষয়-মুখোমুখি রজনীকান্ত ও অক্ষয়-মুখোমুখি
আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল আজকে আইন প্রশাসনের অধীনে না: নজরুল
পার্টি ডাকলে সাড়া দেবো, সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত-জ্যোতি পার্টি ডাকলে সাড়া দেবো, সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত-জ্যোতি
রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই রাধানীতে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা হলেও বাস্তবায়ন নেই
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার
গুদামের খাদ্যদ্রব্য পাচারে-সক্রিয় চোর সিন্ডিকেট
প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ৩০০ পৃষ্ঠার খসড়া অনুমোদন করেছে-ব্যাংকক
সড়ক শৃঙ্খলা-মূল সমস্যাটা রাজনীতিতেই: কাদের
বিশ্বের ভয়াবহ আবহাওয়া নিয়ে প্রযুক্তিগত আলোচনা চলছে
রোহিঙ্গা প্রশ্নে চীন-রাশিয়াকে-জাতিসংঘের কড়া হুুশিয়ারি!
খালেদা জিয়ার জামিন বহাল
বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে নেপালে প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগের জন্য যা পেয়েছি তা ভয়ংকর!
‘ট্যঁর দ্যে ফ্যাম’ রিপোর্ট: জার্মানিতে যৌনাঙ্গচ্ছেদে শিকার-৬৫হাজার নারী