ঢাকা, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কী ঘটেছিল সেই দিন?
সোমবার ● ৬ আগস্ট ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কী ঘটেছিল সেই দিন?

---এম ডি শাহাদাৎ হোসেন: শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের ওপর হামলা চালিয়েছিল।তবে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মীরা বলছেন, তাদের কেউ ওই হামলা সঙ্গে জড়িত নয়।নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শনিবার আওয়ামী লীগ কর্মীদের সাথে সংঘর্ষে ঢাকার ধানমণ্ডির জিগাতলা এবং সায়েন্স ল্যাব মোড় অনেকটা রণক্ষেত্রে রূপ নিয়েছিল।সংঘর্ষে অন্তত ২৫জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে, যাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তবে সন্ধ্যার দিকে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে এবং ঘটনাস্থল ঘুরে জানা গেল, জিগাতলার মোড়ে কিছু শিক্ষার্থী অবস্থান নিয়ে গাড়ির কাগজপত্র দেখছিল। দুপুরের পরে হঠাৎ করে হেলমেট পড়া একদল যুবক এসে লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা করে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা প্রথমে পিছু হটে গেলেও একটু পরে সংগঠিত হয়ে তাদের ধাওয়া করে। এরপর ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকে। ইটপাটকেল ছোড়াছুড়ি চলে।

মোটরসাইকেলে হেলমেট পড়া যে যুবকরা ছিল, তারা পিস্তল উঁচিয়ে ফাঁকা গুলি করেছে বলেও জানিয়েছেন কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী। কিছুক্ষণ পরে এই ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া থেমে যায়।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, হেলমেট পড়া যুবকরা তাদের কর্মী নয় বা তাদের কোন কর্মী সমর্থক এই হামলা করেনি। এদের কাউকে তারা চেনে না।

তবে ঘটনার শুরু সম্পর্কে ভিন্ন বক্তব্য দিয়েছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তারা বলছেন, আন্দোলনরত একজন শিক্ষার্থীকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কয়েকজন কর্মী ডেকে কথা বলেন।

কিন্তু কথা ছড়িয়ে পড়ে যে তাকে চড়থাপ্পর দেয়া হয়েছে, এরকম কথা ছড়িয়ে পড়ার পর সংঘর্ষের সূত্রপাত হয় বলে তারা বলছেন।

এই ঘটনার কিছু পরে বেশ কয়েকটি গুজব ছড়িয়ে পড়ে। শিক্ষার্থীরা বলছেন, তাদের কাছে খবর আসে যে, একজনকে জিগাতলায় আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশে নির্বাচনী অফিসে ধরে নিয়ে পিটিয়ে মারা হয়েছে।

আরো গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে, আওয়ামী লীগ অফিসের ভেতর একটি মেয়েকে ধরে নিয়ে ধর্ষণ করা হচ্ছে।তখন বিভিন্ন স্থান থেকে উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা এসে জিগাতলায় জড়ো হন। তারা স্বীকার করেছেন যে, এসব তারা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিসে ইটপাটকেল ছোড়ে। তখন তাদের মধ্যে কয়েক দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

এসময় দুই পক্ষেই অনেকে আহত হন। কাছেই পপুলার নামের একটি হাসপাতালে দুই পক্ষ মিলিয়ে ২৫জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পুরো ঘটনার সময় পুলিশ নিষ্ক্রিয় অবস্থান নিয়েছিল বলে বলেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
Iআন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের শান্ত থেকে ঘরে ফিরে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিকাল সাড়ে ৫টার পর ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের কয়েকজনকে আওয়ামী লীগের অফিসের ভেতরে নিয়ে যান। তাদের তারা অফিসটি ঘুরিয়ে দেখান।

সেই শিক্ষার্থীরা বাইরে বেরিয়ে এসে বলেন, তারা যা শুনেছে, তা সঠিক নয়। এরপর আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীকে এসে আওয়ামী লীগ অফিসের ভেতরে ঘুরিয়ে দেখানো হয়। পুলিশও কয়েকজনকে নিয়ে এসে অফিসটি দেখায়।

এরপর শিক্ষার্থীরা শান্ত হন। সন্ধ্যার দিকে পুরো এলাকাটি শান্ত হয়ে আসে।
ধানমণ্ডি থানার পুলিশ জানিয়েছে, শনিবারের ওই ঘটনায় কোন মামলা হয়নি।

পুলিশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ছাত্র নিহত বা ধর্ষণের যেসব গুজব রটানো হয়েছে, তারা তদন্ত করে তার কোন প্রমাণ খুঁজে পাননি।


গুণ্ডাতন্ত্রের মধ্যে বেঁচে থাকতে চাই না- ড. কামাল

চামড়া শিল্পের ব্যবসায়ীদের ওপর ক্ষিপ্ত- শিল্পমন্ত্রী


এ বিভাগের আরো খবর...

সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে
জলবায়ু পরিবর্তনের যুদ্ধে নারীর অংশগ্রহণ করতে হবে-প্যাট্রিসিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের যুদ্ধে নারীর অংশগ্রহণ করতে হবে-প্যাট্রিসিয়া
নির্বাচন কমিশনকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে নির্বাচন কমিশনকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে
বিএনপির দুটি আসনের পরিবর্তন বিএনপির দুটি আসনের পরিবর্তন
ভিকারুননিসার ছাত্রী-অরিত্রীর আত্মহত্যা-দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত! ভিকারুননিসার ছাত্রী-অরিত্রীর আত্মহত্যা-দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত!
কলেজ শিক্ষক আলী হোসেন হত্যা দুইজনের ত্যুদণ্ড কলেজ শিক্ষক আলী হোসেন হত্যা দুইজনের ত্যুদণ্ড
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ চুরি ঘটনা আবারও বেড়ে গেছে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ চুরি ঘটনা আবারও বেড়ে গেছে
বাংলাদেশে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে-এমসিসির মূল্যায়ন বাংলাদেশে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে-এমসিসির মূল্যায়ন
নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক

সর্বাধিক পঠিত

ভিডিও কনফারেন্সে নির্বাচনি প্রচার চালাবেন-শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে নির্বাচনি প্রচার চালাবেন-শেখ হাসিনা
উত্তেজনার মধ্যে রাজধানীতে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের প্রচারণা শুরু উত্তেজনার মধ্যে রাজধানীতে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের প্রচারণা শুরু
বিএন‌পি-জামায়াতকে ভোট দিয়ে লাভ নেই- শামীম বিএন‌পি-জামায়াতকে ভোট দিয়ে লাভ নেই- শামীম
চাকরি না হওয়া পযর্ন্ত বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে- ফখরুল চাকরি না হওয়া পযর্ন্ত বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে- ফখরুল
সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত
নৌকা হচ্ছে শান্তির প্রতীক, নৌকা হচ্ছে উন্নয়নের প্রতীক- শেখ হাসিনা নৌকা হচ্ছে শান্তির প্রতীক, নৌকা হচ্ছে উন্নয়নের প্রতীক- শেখ হাসিনা
স্লোভাকিয়ার সামরিক অ্যাটাশে বহিষ্কার করল- রাশিয়া স্লোভাকিয়ার সামরিক অ্যাটাশে বহিষ্কার করল- রাশিয়া
ধানের শীষের গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে- খসরু ধানের শীষের গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে- খসরু
জয় পেতে যা করণীয় তাই করা হবে- মাশরাফি জয় পেতে যা করণীয় তাই করা হবে- মাশরাফি
আ’লীগ নয়, আমাদের প্রতিপক্ষ পুলিশ- বিএনপি আ’লীগ নয়, আমাদের প্রতিপক্ষ পুলিশ- বিএনপি
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে
জলবায়ু পরিবর্তনের যুদ্ধে নারীর অংশগ্রহণ করতে হবে-প্যাট্রিসিয়া
বিএনপির দুটি আসনের পরিবর্তন
কলেজ শিক্ষক আলী হোসেন হত্যা দুইজনের ত্যুদণ্ড
নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক
বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?
একটি অর্থবহ ও সফল সংলাপের প্রত্যাশা করছি
শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটের: প্রত্যাশিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হবে কি?
নদীশাসনের দুর্বলতা বিঘ্নিত হচ্ছে নৌপথে চলাচল
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার