ঢাকা, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » জেলার খবর » দিনাজপুরে নৈশ প্রহরী খুনের ঘটনা, সন্দেহভাজনকে পুড়িয়ে হত্যা
বৃহস্পতিবার ● ৯ আগস্ট ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

দিনাজপুরে নৈশ প্রহরী খুনের ঘটনা, সন্দেহভাজনকে পুড়িয়ে হত্যা

---বিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব সংবাদদাতা:দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হামিদুল আলম জানান, দিনাজপুরের বীরগঞ্জে এক নৈশ প্রহরী খুন হওয়ার পর সন্দেহভাজন খুনিকে ধরে পুড়িয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় জনতা।ভোরে বীরগঞ্জ উপজেলার শালবাগান ও হাটতলা মোড়ে এই দুই হত্যাকাণ্ড ঘটে।

নিহত নৈশ প্রহরী সুরুজ আলী (৫০) বীরগঞ্জ পৌরসভার জেলখানা মোড় এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে। আর জনতার হাতে নিহত রবিউল ইসলাম (৩২) একই এলাকার তারা মিয়ার ছেলে।

পুলিশ বলছে, নৈশপ্রহরী সুরুজ আলী ভোরে শালবাগান মোড়ে দায়িত্ব পালনের সময় তাকে ছুরি মেরে হত্যা করা হয়। এর পরপরই হাটখোলা মোড়ে দায়িত্বরত নৈশপ্রহরী শহীদ (৪০) ‘দুর্বৃত্তের’ ছুরিকাঘাতে আহত হন।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে ওঠে এবং সকাল ৬টার দিকে দিনাজপুর-রংপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। এর মধ্যে জেলখানা মোড় এলাকায় রবিউলের বাড়িতে রক্তমাখা জামা-কাপড় পাওয়া গেলে তাকে খুঁজতে শুরু করে জনতা।

স্থানীয় বাসিন্দা সুলতান আহমেদ বলেন, ঘণ্টা দুই পর তেরমাইল গড়েয়া এলাকায় রবিউলকে পাওয়া গেলে তাকে ধরে শালবাগান এলাকায় এনে পেটানো হয়। পরে গায়ে আগুন দিয়ে তাকে পুড়িয়ে হত্যা করে জনতা।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ সুপার হামিদুল আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পুলিশের হস্তক্ষেপে বেলা ১০টার দিকে দিনাজপুর-রংপুর-পঞ্চগড় মহাসড়কে যান চলাচল শুরু হলেও এলাকায় চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে বলে স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক জানান।

পুলিশ সুপার হামিদুল আলম বলেন, “প্রাথমিক তথ্যে মনে হয়েছে, রবিউল একাই ওই হত্যায় জড়িত। এলাকাবাসী বিষয়টি জানার পর তাকে ধরে এনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। তবে স্থানীয়রা বলেছে, রবিউল খানিকটা পাগল প্রকৃতির।


চাঁদপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

ট্রেনের টিকিট পেতে মানুষের লম্বা লাইন


এ বিভাগের আরো খবর...

দুঃস্বপ্নের এক ম্যাচ টাইগারদের দুঃস্বপ্নের এক ম্যাচ টাইগারদের
কুমিল্লায় বাবার ট্রাকের চাকায় প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের কুমিল্লায় বাবার ট্রাকের চাকায় প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের
ভাতিজার হাত ধরে পালিয়ে গেলেন চাচী ভাতিজার হাত ধরে পালিয়ে গেলেন চাচী
ঝুঁকি নেই সাকিবের: টাইগার কোচ ঝুঁকি নেই সাকিবের: টাইগার কোচ
১১ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা! ১১ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা!
স্ত্রী ও ২ মেয়েকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা স্ত্রী ও ২ মেয়েকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা
সাগর উত্তাল; ঘূর্ণিঝড় ‘ফেথাইয়ের’ প্রভাবে সাগর উত্তাল; ঘূর্ণিঝড় ‘ফেথাইয়ের’ প্রভাবে
৬ কেজি স্বর্ণ জব্দ সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে ৬ কেজি স্বর্ণ জব্দ সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে
না ফেরার দেশে চলে গেলেন পরিচালক আমজাদ হোসেন না ফেরার দেশে চলে গেলেন পরিচালক আমজাদ হোসেন
বিএন‌পি-জামায়াতকে ভোট দিয়ে লাভ নেই- শামীম বিএন‌পি-জামায়াতকে ভোট দিয়ে লাভ নেই- শামীম

সর্বাধিক পঠিত

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে- জাতিসংঘ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে- জাতিসংঘ
মা ক্যানসারে আক্রান্ত ছেলে আসছেন কেকেআরএ মা ক্যানসারে আক্রান্ত ছেলে আসছেন কেকেআরএ
চাহিদার অতিরিক্ত কফি: ইউএসডিএ চাহিদার অতিরিক্ত কফি: ইউএসডিএ
দেশে ১০১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন দেশে ১০১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
মাহবুব তালুকদারের কথা সত্য নয়- সিইসি মাহবুব তালুকদারের কথা সত্য নয়- সিইসি
আইসিএসবিতে বিজয় দিবস পালন আইসিএসবিতে বিজয় দিবস পালন
নিলামে বড় প্রশ্ন যুবরাজকে নিয়ে নিলামে বড় প্রশ্ন যুবরাজকে নিয়ে
ঢাকায় ধানের শীষের প্রার্থী সালাহউদ্দিনের প্রচারে হামলা! ঢাকায় ধানের শীষের প্রার্থী সালাহউদ্দিনের প্রচারে হামলা!
নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছে- বিএনপি নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছে- বিএনপি
আইপিএলের নিলাম শুরু আইপিএলের নিলাম শুরু
নেইমারের সমালোচনায় পেলে
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে
জলবায়ু পরিবর্তনের যুদ্ধে নারীর অংশগ্রহণ করতে হবে-প্যাট্রিসিয়া
বিএনপির দুটি আসনের পরিবর্তন
কলেজ শিক্ষক আলী হোসেন হত্যা দুইজনের ত্যুদণ্ড
নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক
বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?
একটি অর্থবহ ও সফল সংলাপের প্রত্যাশা করছি
শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটের: প্রত্যাশিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হবে কি?
নদীশাসনের দুর্বলতা বিঘ্নিত হচ্ছে নৌপথে চলাচল