ঢাকা, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » পরিবেশ ও জলবায়ু » জলবায়ু পরিবর্তনে-নিউ ইয়র্ক ও সিডনির কোন দ্বীপে বসতি থাকবে না
রবিবার ● ১২ আগস্ট ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

জলবায়ু পরিবর্তনে-নিউ ইয়র্ক ও সিডনির কোন দ্বীপে বসতি থাকবে না

---বিবিসি২৪নিউজ ডেস্ক: বৈশ্বিক উষ্ণায়ন জলবায়ু পরিবর্তনে- নিউ ইয়র্ক ও সিডনির মতো উপকূলীয় অনেক শহর ও দ্বীপে আর মানুষের বসতি থাকবে না৷ উষ্ণতা এভাবে বাড়লে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা ১০ থেকে ৬০ মিটার বাড়বে৷ ভেনিস, নিউ ইয়র্ক, টোকিও ও সিডনির মতো উকূলীয় অনেক শহর প্লাবিত হবে৷ এ ধরনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ শহরে আর মানুষের বসবাস থাকবে না৷বিজ্ঞানীরা একে ‘হটহাউজ আর্থ’ ক্লাইমেট সিনারিও বলছেন৷

তবে প্যারিস চুক্তি সফলভাবে বাস্তবায়ন হলেও বৈশ্বিক তাপমাত্রা ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিজ্ঞানীরা৷

জার্মানি, সুইডেন, ডেনমার্ক ও অস্ট্রেলিয়ার একদল বিজ্ঞানীর একটি যৌথ গবেষণায় হতাশাজনক এই পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে৷ তাঁরা বলেছেন, প্যারিস জলবায়ু চুক্তির লক্ষ্য অর্জন হলে এবং বৈশ্বিক উষ্ণায়ন বৃদ্ধি প্রাক-শিল্প যুগের তুলনায় ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলেও জলবায়ু পরিবর্তন বিপর্যয়কর পর্যায়ে চলে যেতে পারে৷

অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও সুইডিশ রিসার্চ ইনস্টিটিউট স্টকহোম রেজিলিয়েন্স সেন্টারের জলবায়ু গবেষক উইল স্টেফেন এই গবেষক প্রতিবদনের লিড অথোর৷

তিনি বলেন, ‘‘মানুষ যে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ করে, সেটাই পৃথিবীর তাপমাত্রার মূল নিয়ামক নয়৷ আমাদের গবেষণা বলছে, মানবসৃষ্ট কারণে বৈশ্বিক উষ্ণতা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়লে তা পৃথিবীর অন্যান্য ব্যবস্থায়ও প্রভাব ফেলবে, যাকে ‘ফিডব্যাক’ বলা হয়৷ এটা আরও উষ্ণতা তৈরি করতে পারে, এমনকি আমরা গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ বন্ধ করলেও তা হতে পারে৷”

এ ঘটনায় বৈশ্বিক উষ্ণায়ন দীর্ঘমেয়াদে প্রাক-শিল্প যুগের চেয়ে ৪ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি হতে পারে বলে গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে৷

ভারত, ফ্রান্স এবং ব্রিটেনের মতো বেশ কিছু দেশ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, গ্যাস এবং ডিজেল চালিত গাড়ির সংখ্যা কমিয়ে ইলেকট্রিক চালিত গাড়ি তৈরিতে জোড় দেওয়ার৷ বিশ্বে সবচেয়ে বেশি গাড়ি প্রস্তুত করে চীন৷ তারাও কেবলমাত্র জৈব জ্বালানি দিয়ে চালিত গাড়ি ‘ব্যান’ করার একটি পরিকল্পনা করেছে৷ পরিবেশবান্ধব জ্বালানির দিকে এক ধাপ এগোতেই পারে ২০১৮৷

সোমবার প্রসিডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেস বা পিএনএএসে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে বৈষ্ণিক উষ্ণতা ২ ডিগ্রি বৃদ্ধিতে ক্লাইমেট সিস্টেম কেমন হবে, তা বেশ কয়েকটি মডেলে বিশ্লেষণ করা হয়েছে৷

হিমবাহের গলন, হিমৈশল গলে যাওয়া, সমুদ্রে ব্যাকটেরিয়া ও কার্বন সিংক দুর্বল হয়ে পড়ার মধ্যে সম্পর্ক ও চেইন রিঅ্যাকশন দেখা গেছে৷

ফিডব্যাক প্রক্রিয়া হিসেবে জলবায়ুর পরিবর্তন, বনের ওপর প্রভাব ও হিমৈশলের গলনে তাতে বিদ্যমান কার্বন ডাই-অক্সাইড ও মিথেনের মতো গ্রিনহাউস গ্যাসের নিঃসরণ ঘটে তা পরিবেশের অন্যান্য ‘শত্রুদের‘ ওপর প্রভাব ফেলে৷ এতে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বিভিন্ন উপাদানে সংরক্ষিত কার্বন নিঃসরণ ঘটে তা বায়ুমণ্ডলে ছড়িয়ে পড়ে৷

ফিডব্যাক প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে তুষারপাত, বজ্রঝড় হয়ে থাকে বলে জানান স্টকহোম রেজিলিয়েন্স সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক জোহান রকস্ট্রম৷

‘‘এ সব টিপিং এলিমেন্ট সারিবদ্ধ ডোমিনোর মতো আচরণ করে৷ একবার কোনোটা দুর্বল হলে সেটা পৃথিবীর সিস্টেমের আরেকটিকে আঘাত করে৷ সব ডোমিনোকে ধসের হাত থেকে রক্ষা করা খুব কঠিন বা অসম্ভব হয়ে ওঠে৷ পৃথিবী ক্রমশ বাড়তে থাকা তাপমাত্রায় উষ্ণ হতে থাকে৷ এমনকি মানুষ পুরোপুরি গ্রিন হাউস নিঃসরণ বন্ধ করলেও তা হতে থাকবে৷


চট্টগ্রামে পুড়ে মরল শেকলবন্দি মানসিক প্রতিবন্ধী

কোটা আন্দোলনকারীদের আল্টিমেটাম ৩১ আগস্ট পর্যন্ত


এ বিভাগের আরো খবর...

সমকামিতা কি সারিয়ে তোলা সম্ভব? সমকামিতা কি সারিয়ে তোলা সম্ভব?
নারী পাচার ঠেকাতে ‘কালো জাদু’ নারী পাচার ঠেকাতে ‘কালো জাদু’
জলবায়ু নিয়ে বড় বিপর্যয়ের ঝুঁকি দেখছেন বিজ্ঞানীরা জলবায়ু নিয়ে বড় বিপর্যয়ের ঝুঁকি দেখছেন বিজ্ঞানীরা
ভারতে সত্তর বছরের নারীকে ধর্ষণ! ভারতে সত্তর বছরের নারীকে ধর্ষণ!
প্রথম পর্যটক হিসেবে চাঁদে যাবেন জাপানের এক কোটিপতি প্রথম পর্যটক হিসেবে চাঁদে যাবেন জাপানের এক কোটিপতি
শীর্ষ ধনীরা নামকরা সংবাদপত্র কিনে নিচ্ছে কেন? শীর্ষ ধনীরা নামকরা সংবাদপত্র কিনে নিচ্ছে কেন?
২৩ হাজার পোস্ট-মর্টেম করেছেন ডা. রিচার্ড শেফার্ড ২৩ হাজার পোস্ট-মর্টেম করেছেন ডা. রিচার্ড শেফার্ড
রোবট কেড়ে নেবে ৭ কোটি মানুষের কাজ! রোবট কেড়ে নেবে ৭ কোটি মানুষের কাজ!
উদ্ভাবনী শক্তিতে সবার পিছনে কেন বাংলাদেশ? উদ্ভাবনী শক্তিতে সবার পিছনে কেন বাংলাদেশ?
গাঁজার পানীয় তৈরিতে আগ্রহী কেন কোকা-কোলা? গাঁজার পানীয় তৈরিতে আগ্রহী কেন কোকা-কোলা?

সর্বাধিক পঠিত

মালয়েশিয়ায় ৫৫ বাংলাদেশি আটক মালয়েশিয়ায় ৫৫ বাংলাদেশি আটক
১ অক্টোবর থেকে সভা-সমাবেশ করবে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া ১ অক্টোবর থেকে সভা-সমাবেশ করবে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া
ডিজিটাল আইনের নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল চায়- সুজন ডিজিটাল আইনের নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল চায়- সুজন
ছেলেবেলা থেকেই নেইমার আমার আদর্শ-রিশার্লিসন ছেলেবেলা থেকেই নেইমার আমার আদর্শ-রিশার্লিসন
ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলায় নিহত ২৪ ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলায় নিহত ২৪
অধিকার পুনোরুদ্ধার করতে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে- কামাল অধিকার পুনোরুদ্ধার করতে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে- কামাল
রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টার সঙ্গে সামরিক প্রস্তুতিও নিতে হবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টার সঙ্গে সামরিক প্রস্তুতিও নিতে হবে
নরসিংদীতে ব্রহ্মপুত্রে নৌকা ডুবি, নিহত ৩ নরসিংদীতে ব্রহ্মপুত্রে নৌকা ডুবি, নিহত ৩
জিতের শহর কলকাতায় ‘নাকাব’৮৪টি প্রেক্ষাগৃহে চলছে জিতের শহর কলকাতায় ‘নাকাব’৮৪টি প্রেক্ষাগৃহে চলছে
ড. কামালের ‘ঐক্য প্রক্রিয়া’র সমাবেশে ফখরুল ড. কামালের ‘ঐক্য প্রক্রিয়া’র সমাবেশে ফখরুল
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার
গুদামের খাদ্যদ্রব্য পাচারে-সক্রিয় চোর সিন্ডিকেট
প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ৩০০ পৃষ্ঠার খসড়া অনুমোদন করেছে-ব্যাংকক
সড়ক শৃঙ্খলা-মূল সমস্যাটা রাজনীতিতেই: কাদের
বিশ্বের ভয়াবহ আবহাওয়া নিয়ে প্রযুক্তিগত আলোচনা চলছে
রোহিঙ্গা প্রশ্নে চীন-রাশিয়াকে-জাতিসংঘের কড়া হুুশিয়ারি!
খালেদা জিয়ার জামিন বহাল
বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে নেপালে প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগের জন্য যা পেয়েছি তা ভয়ংকর!
‘ট্যঁর দ্যে ফ্যাম’ রিপোর্ট: জার্মানিতে যৌনাঙ্গচ্ছেদে শিকার-৬৫হাজার নারী