ঢাকা, জানুয়ারী ২১, ২০১৯, ৮ মাঘ ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » রোহিঙ্গা নিয়ে গভীর সংকটে বাংলাদেশ?
রবিবার ● ২৬ আগস্ট ২০১৮, ৮ মাঘ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

রোহিঙ্গা নিয়ে গভীর সংকটে বাংলাদেশ?

---এম ডি জালাল: রোহিঙ্গাদের গত বছরের ২৫ আগস্টে মানবেতিহাসের অন্যতম ঘৃণ্য হত্যাযজ্ঞ ও উচ্ছেদ অভিযান ট্র্যাজেডির পর সব মিলিয়ে বর্তমানে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টি অস্থায়ী শিবিরে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর উৎপীড়ন ও নির্যাতনের মুখে রোহিঙ্গা মুসলমানদের পালিয়ে আসা শুরু হয় বাংলাদেশে এই দিন থেকেই। এর আগেও বাংলাদেশে অবস্থান করছিল পালিয়ে আসা লাখ লাখ রোহিঙ্গা।

রোহিঙ্গা উচ্ছেদ অভিযানের পর থেকে মিয়ানমার সরকারের প্রতি বিশ্ব সম্প্রদায়ের নানা ধরনের চাপ শুরু হয় রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার ব্যাপারে। জাতিসংঘ থেকে শুরু করে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার পক্ষ থেকে মিয়ানমার সরকারের রোহিঙ্গা নিপীড়নের প্রতিবাদ জানানো হয়, দাবি তোলা হয় তাদের ফেরত নেয়ার। কিন্তু বিশ্ব সম্প্রদায়ের সব দাবিই অরণ্যে রোদনে পর্যবসিত হয়।

শুধু তাই নয়, উল্টো নানা ধরনের কূট-কৌশলের আশ্রয় নিতে থাকে মিয়ানমার। সর্বশেষ মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি সিঙ্গাপুরের এক অনুষ্ঠানে এই বলে বাংলাদেশের ওপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করেছেন যে, তারা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফেরত নিতে প্রস্তুত, কিন্তু এ ব্যাপারে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি! সু চি’র এই বক্তব্য বিস্ময়করই বটে, কারণ বাংলাদেশ গত এক বছর ধরে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর লক্ষ্যে নানা ধরনের কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে আসছে।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হল, এ বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে ৬৭৩ পরিবারের ৮ হাজার ৩২ জন রোহিঙ্গার একটি তালিকা মিয়ানমারকে হস্তান্তর করার পর মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ ওই তালিকা যাচাই-বাছাই করে ৩৭৪ জন রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নিতে সম্মত হলেও কখন ও কীভাবে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করা হবে, এ ব্যাপারে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রকাশ করেনি তারা।

মিয়ানমার যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে অনাগ্রহী, তার বড় প্রমাণ রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা অভিযানের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে মিয়ানমার। নিরাপত্তা রক্ষার নামে সীমান্ত বরাবর তারা বানিয়েছে ১৬০টিরও বেশি পুলিশ আউটপোস্ট।

এসব আউটপোস্ট যে রোহিঙ্গাদের রাখাইন রাজ্যে প্রবেশ ঠেকাতেই, তা বলাই বাহুল্য। গত নভেম্বরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি হয়েছিল। এরপর দুই দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যে কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। কিন্তু চুক্তি সইয়ের দশ মাস পেরিয়ে গেলেও মিয়ানমার এখন পর্যন্ত চুক্তির কোনো শর্তই পালন করেনি। অর্থাৎ এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে অনাগ্রহী। এ অবস্থায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ব্যাপার বাংলাদেশ তো বটেই, বিশ্ব সম্প্রদায়কেও নতুন করে ভাবতে হবে। এটা স্পষ্ট, মিয়ানমার সরকারের ওপর কার্যকর চাপ প্রয়োগ ছাড়া রোহিঙ্গাদের সেখানে ফেরত পাঠানো যাবে না। এই চাপ কীভাবে প্রয়োগ করা যায়, বিশ্ব সম্প্রদায়ের সামনে এটাই এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন।


১ লাখ টন কয়লা আমদানির সিদ্ধান্ত- নসরুল হামিদ

সিন্ডিকেটমুক্ত মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার


এ বিভাগের আরো খবর...

বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয় খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে? ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?
বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন! বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
ইশতেহার নয়, কাজে বিশ্বাস করে দেশবাসী ইশতেহার নয়, কাজে বিশ্বাস করে দেশবাসী
বাড়ছে চাল উৎপাদন - নেপাল বাড়ছে চাল উৎপাদন - নেপাল
সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত সবদলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলা উচিত
নির্বাচন কমিশনকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে নির্বাচন কমিশনকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে
ভিকারুননিসার ছাত্রী-অরিত্রীর আত্মহত্যা-দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত! ভিকারুননিসার ছাত্রী-অরিত্রীর আত্মহত্যা-দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত!
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ চুরি ঘটনা আবারও বেড়ে গেছে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ চুরি ঘটনা আবারও বেড়ে গেছে

সর্বাধিক পঠিত

এবারের নির্বাচনের পরিবেশ ছিল সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ- তথ্যমন্ত্রী এবারের নির্বাচনের পরিবেশ ছিল সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ- তথ্যমন্ত্রী
শোয়েব মালিক বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখছেন শোয়েব মালিক বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখছেন
পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’ আদলতকে- বিএসটিআই পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’ আদলতকে- বিএসটিআই
নবম ওয়েজবোর্ড গঠনে ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে কমিটি নবম ওয়েজবোর্ড গঠনে ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে কমিটি
নোয়াখালীতে বাস-সিএনজি সংঘর্ষ নিহত ৪ নোয়াখালীতে বাস-সিএনজি সংঘর্ষ নিহত ৪
প্রতিবন্ধী কোটা আগের মতই আছে- শফিউল আলম প্রতিবন্ধী কোটা আগের মতই আছে- শফিউল আলম
রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া অনুমোদন দিয়েছে- মন্ত্রীসভা রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া অনুমোদন দিয়েছে- মন্ত্রীসভা
তালেবানের গাড়িবোমা হামলায় নিহত ১২ তালেবানের গাড়িবোমা হামলায় নিহত ১২
প্রশাসনকে ব্যবহার করে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে- ফখরুল প্রশাসনকে ব্যবহার করে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে- ফখরুল
হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে স্বাস্থ্য পরিদর্শক নিহত হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে স্বাস্থ্য পরিদর্শক নিহত
বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ
মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে!
সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?
মহাজোটের মহাজয়ে শেখ হাসিনা
বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
নেইমারের সমালোচনায় পেলে
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে