ঢাকা, জানুয়ারী ২১, ২০১৯, ৮ মাঘ ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » সামনের দিনগুলি খুবেই কঠিন, রক্তপাত বৃদ্ধি পাবে- অলি
বুধবার ● ২৪ অক্টোবর ২০১৮, ৮ মাঘ ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

সামনের দিনগুলি খুবেই কঠিন, রক্তপাত বৃদ্ধি পাবে- অলি

---বিবিসি২৪নিউজ,নিজস্ব প্রতিবেদক:লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেছেন, দিনগুলো খুবই কঠিন।যতই দিন যাবে, ততই বিশৃঙ্খল হবে। যতই দিন যাবে, রক্তপাত বৃদ্ধি পাবে। বিরোধী দলগুলোকেও সংযত হতে হবে, সরকারকে নমনীয় হতে হবে।

গতকাল বিকেলে বিভিন্ন ‘রাজনৈতিক দলের’ নেতা-কর্মীদের এলডিপিতে যোগদান অনুষ্ঠানে কর্নেল (অব.) অলি আহমদ এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচনের জন্য আমি বঙ্গবন্ধু কন্যাকে অনুরোধ করব, রক্তপাত এড়ান। গালি দিয়ে, মন্দ কথা বলে, কাউকে শাসিয়ে, সমালোচনা করে সমস্যার সমাধান হবে না। বসেন, আলোচনা করেন।’

অলি আহমদ বলেন, কীভাবে সুন্দর নির্বাচন হবে, প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল কীভাবে অংশগ্রহণ করবে, সকলের জন্য কীভাবে সমান-সুযোগ নিশ্চিত করা হবে, এগুলো নিয়ে কথা বলার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, এখনো সময় আছে।

বিপথগামী না হয়ে গালাগালি বন্ধ করে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে জাতীয় সমস্যা যেগুলো আছে, এগুলো কীভাবে মীমাংসা করবেন—দুর্নীতিবাজদের কীভাবে ধরা হবে, সন্ত্রাসী, মাদকের সঙ্গে জড়িতদের কীভাবে ধরা হবে এসব নিয়ে ভাবার কথা বলেন।

আলোচনার বিষয়ে অলি আহমদ বলেন, ‘যারা দলীয় ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টুঙ্গিপাড়ায় যায়, তরাই দেখবেন হঠাৎ করে উল্টোদিকে মোড় নিয়ে চলাফেরা করছে।

এখনো সময় আছে, সঠিক পথে এসে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যাগুলো সমাধান করেন। জনগণকে আলোর পথ দেখান, রক্তপাত বন্ধ করেন।

তিনি বলেন, এখন আমি ক্ষমতায় আছি, আমি হাজার কোটি টাকা চুরি করব কেউ আমাকে ধরতে পারবে না। যেই ক্ষমতা নেই, দুই টাকা চুরি করলেও তাকে জেলে নিয়ে যায়।

এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। দলীয় ভিত্তিতে নিয়োগ হচ্ছে, দলীয় ভিত্তিতে বিচারকাজ চলছে। আমি তো মনে করি এই সরকার যখন ক্ষমতা থেকে যাবে, এই জজেরা (বিচারকেরা) তাদের ফাঁসিরকাষ্টে ঝুলাবে, যাবজ্জীবন জেল দেবে, ১০-৫ বছর জেল দেবে।

নিজের উদ্বেগের কথা জানিয়ে অলি আহমদ বলেন, আগামী দিনগুলো খুবই কঠিন। আমি বারবার কিন্তু দেশবাসীকে সাবধান করে দিচ্ছি, প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের প্রতি আমি সাবধান বাণী ঘোষণা করছি—দিনগুলো খুবই কঠিন।

যতই দিন যাবে, ততই বিশৃঙ্খল হবে। যতই দিন যাবে, রক্তপাত বৃদ্ধি পাবে। বিরোধী দলগুলোকেও সংযত হতে হবে, সরকারকে নমনীয় হতে হবে। সরকারকে আলোচনার জন্য এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘কেউ যদি মনে করে, আমরা একাই দেশ চালাব, এটা হয় না। দেশ চালাতে হলে প্রত্যেকের অংশগ্রহণের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

কেউ বিরোধী দলে থাকবে, কেউ সরকার পরিচালনা করবে, এটাই নিয়ম। কিন্তু এটা কে সিদ্ধান্ত নেবে? সিদ্ধান্ত নেবে জনগণ।’

অলি আহমদ আরও বলেন, রাজনীতি দুর্নীতিগ্রস্ত, রাজনীতিবিদেরা দুর্নীতিগ্রস্ত। মানুষের যাওয়ার জায়গা নেই। একটি সৎ, সুন্দর রাজনীতি চায় মানুষ।

জনগণের প্রতিনিধির মাধ্যমে সংসদ গঠন করতে চায়, সরকার গঠন করতে চায়, সরকার পরিচালনা করতে চায়।

মানুষের সেই আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণ হচ্ছে না। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম, আমাদের একটি লক্ষ্য ছিল, সেই লক্ষ্য আজও পূরণ হয়নি। আমাদের সংগ্রাম অব্যাহত আছে।

সরকারে বিরুদ্ধে অভিযোগ করে অলি আহমদ বলেন, আমরা যদি অন্যায়ভাবে ভোট চুরি করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হই, তাহলে আমরা নিজের বিবেকের কাছে যেভাবে দায়ী, জনগণের কাছে আমরা দায়ী।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর কয়েকটি সময় খুবই কঠিন ছিল, তার মধ্যে অন্যতম কঠিন সময় হলো ২০১৮ সাল। অর্থনৈতিকভাবেও খুবই কঠিন।

বাংলাদেশে এমন কোনো ব্যাংক নেই যেখানে তারল্য সংকট নেই। অনেক ব্যাংক তাদের মূলধন পর্যন্ত দুর্নীতির মাধ্যমে চলে গেছে। লাখ-লাখ, হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে।

বিগত ২০ বছরে যারা বিদেশে টাকা পাচার করছে, যারা দ্বিতীয় হোম (বাড়ি) করেছে মালয়েশিয়া ও অন্যান্য দেশে, তাদের বিচারের আওতায় আনা হয়নি। কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

মাদকের বিষয়ে এলডিপির প্রেসিডেন্ট অলি বলেন, দক্ষিণ চট্টগ্রামে অনেক লোক আছে যারা মাদকের সঙ্গে জড়িত, তাদের নাম আমি জানি।

তাদের ধরা হয়নি, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। যারা ২০টা, ৫০টা ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রি করে, তাদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

যারা শত শত কোটি টাকা নিয়ে ইয়াবা ব্যবসা করে, তাদের এখনো ধরা হয়নি। মাদক ব্যবসায়ীদের ধরা হয়নি।

ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎকারীদের ধরা হয়নি। বিদেশে টাকা পাচারকারীদের ধরা হয়নি। বিগত দিনগুলোতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। অর্থাৎ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না।


৬ হাজার তরুণীর বিয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন প্রভাস!

বাইবেল জাদুঘরে কিভাবে ধরা পড়লো জাল পান্ডুলিপি?


এ বিভাগের আরো খবর...

আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক
বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি
ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২ ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২
ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস
বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা
বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ
বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
এবারের নির্বাচনের পরিবেশ ছিল সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ- তথ্যমন্ত্রী এবারের নির্বাচনের পরিবেশ ছিল সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ- তথ্যমন্ত্রী
পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’ আদলতকে- বিএসটিআই পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পানি ‘মানহীন’ আদলতকে- বিএসটিআই

সর্বাধিক পঠিত

আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক আফগান সেনা ঘাঁটিতে তালেবান হামলা, নিহত শতাধিক
বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে এখনও সংশয় কাটেনি
ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২ ভারতে ষাঁড়ের রেসলিং উৎসবে নিহত ২
ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস ফ্রাঙ্কলিংকের ঝড়ে উড়ে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস
বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি সাকিবের ঢাকা
রাতভর নেচে অসুস্থ বিপাশা রাতভর নেচে অসুস্থ বিপাশা
বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নৌবাহিনী প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ
প্রচণ্ড শীত ও ঘন কুয়াশায় ৩১ রোহিঙ্গা শূন্যরেখায় প্রচণ্ড শীত ও ঘন কুয়াশায় ৩১ রোহিঙ্গা শূন্যরেখায়
বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বুধবারের বৈঠকে ইজতেমা নিয়ে সিদ্ধান্ত:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ
মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে!
সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?
মহাজোটের মহাজয়ে শেখ হাসিনা
বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
নেইমারের সমালোচনায় পেলে
জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি ২২ বিলিয়ন ডলার দিবে