ঢাকা, নভেম্বর ২০, ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?
রবিবার ● ৪ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?

---এম ডি জালাল: আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক ও সুষ্ঠু করার লক্ষ্যে সরকারের সঙ্গে বিরোধী দলগুলোর সংলাপের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হচ্ছিল অনেকদিন আগে থেকেই। সংলাপের অভিজ্ঞতা আমাদের ভালো নয়।অতীতের কোনো সংলাপই সুফল বয়ে আনতে পারেনি। তবে বৃহস্পতিবার রাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের সঙ্গে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বহুল প্রত্যাশিত সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সেই প্রেক্ষাপটে শেষ পর্যন্ত সরকারি দলের নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ অনুষ্ঠিত হল।গণভবনে অনুষ্ঠিত এ সংলাপে দুই পক্ষের মধ্যে সমঝোতামূলক কোনো ঐক্য প্রতিষ্ঠিত না হলেও কিছু ইতিবাচক বিষয় লক্ষ্য করা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের আশ্বস্ত করেছেন এই বলে যে, এখন থেকে সভা-সমাবেশ ও মতপ্রকাশের ক্ষেত্রে কোনো বাধা দেয়া হবে না।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কর্তৃক উত্থাপিত বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে মামলা ও তাদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে এ ধরনের নেতাকর্মীদের একটি তালিকা চেয়েছেন।

জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচনে সীমিত আকারে ইভিএম ব্যবহার হতে পারে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ও বিদেশি পর্যবেক্ষকদের দাবির ব্যাপারেও ১৪ দলের পক্ষ থেকে সম্মতি পাওয়া গেছে।

সবচেয়ে বড় কথা, আরও সংলাপের প্রয়োজন রয়েছে, বিরোধী দলের পক্ষ থেকে এমন প্রস্তাবের বিপরীতে সরকারি দলের পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেছে।

এটা ঠিক,বৃহস্পতিবারের সংলাপে এমন কোনো ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়নি যাতে বিরোধী পক্ষ পরোপুরি সন্তুষ্ট হতে পারে। খালেদা জিয়ার মুক্তি, সংসদ ভেঙে দেয়া ইত্যাদি বিষয় এখনও অমীমাংসিত থেকে গেছে।

আমরা আশাবাদ ব্যক্ত করতে পারি অচিরেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সরকার পক্ষ একটা সমঝোতায় উপনীত হতে পারবে, যাতে আগামী নির্বাচনটি অংশগ্রহণমূলক ও সুষ্ঠু হতে পারে। ১৪ দলের সঙ্গে অন্যান্য বিরোধী দলেরও সংলাপ অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

সেসব সংলাপেও নিশ্চয়ই অংশগ্রহণকারীদের পক্ষ থেকে নানা দাবি উত্থাপিত হবে। বাকি সংলাপগুলো অনুষ্ঠিত হওয়ার পর নিশ্চয়ই একটি কমন গ্রাউন্ডে পৌঁছানো সম্ভব হবে।

বিরোধী দলগুলোকে এটা উপলব্ধি করতে হবে যে, নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতা বদলের কোনো সাংবিধানিক ব্যবস্থা নেই। নির্বাচনই একমাত্র গণতান্ত্রিক উপায়, যার মাধ্যমে ক্ষমতার বদল ঘটতে পারে।

বিরোধী দলগুলোকে কোনো দাবির ব্যাপারেই অনড় থাকলে চলবে না।চলমান সংলাপগুলো যেন ব্যর্থ না হয় সে ব্যাপারে সব পক্ষকে আন্তরিক হতে হবে।তাই বিরোধী দলের সেই পরিমাণে ছাড় দেয়ার মানসিকতা থাকতে হবে, যা একটি অর্থবহ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সহায়ক হবে।


চীনের সঙ্গে বন্ধুত্ব আরাে শক্তিশালী করবে- কিম

“বেল্ট এন্ড রোড” এগিয়ে নিতে সম্মত: চীনা-পাকিস্তান


এ বিভাগের আরো খবর...

নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক
বাংলাদেশের রাজনৈতিতে সংলাপের কতটুকু গুরুত্ব পায়? বাংলাদেশের রাজনৈতিতে সংলাপের কতটুকু গুরুত্ব পায়?
বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল? বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?
একটি অর্থবহ ও সফল সংলাপের প্রত্যাশা করছি একটি অর্থবহ ও সফল সংলাপের প্রত্যাশা করছি
বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অপব্যবহার নয় বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অপব্যবহার নয়
শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটের: প্রত্যাশিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হবে কি? শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটের: প্রত্যাশিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হবে কি?
নদীশাসনের দুর্বলতা বিঘ্নিত হচ্ছে নৌপথে চলাচল নদীশাসনের দুর্বলতা বিঘ্নিত হচ্ছে নৌপথে চলাচল
দৃষ্টিহীনদের জন্য পুজো কতটা আনন্দদায়ক? দৃষ্টিহীনদের জন্য পুজো কতটা আনন্দদায়ক?
অবৈধ হাসপাতালগুলো আদালতের নির্দেশ মানছে না কেন? অবৈধ হাসপাতালগুলো আদালতের নির্দেশ মানছে না কেন?
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার

সর্বাধিক পঠিত

মেয়ের নাম জানালেন নেহা-অঙ্গদ মেয়ের নাম জানালেন নেহা-অঙ্গদ
ডিএমপি কমিশনার ও ইসি সচিবের শাস্তি দাবি- বিএনপির ডিএমপি কমিশনার ও ইসি সচিবের শাস্তি দাবি- বিএনপির
তেল দৈনিক ১০ লাখ ব্যারেল বাড়াতে চায় ভেনিজুয়েলা তেল দৈনিক ১০ লাখ ব্যারেল বাড়াতে চায় ভেনিজুয়েলা
পেঁয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ১১ টাকা পেঁয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ১১ টাকা
দীপিকা-রণবীর মুম্বইতে ইন্ডাস্ট্রির বন্ধুদের, সহকর্মীদের জন্য পার্টি দেবেন দীপিকা-রণবীর মুম্বইতে ইন্ডাস্ট্রির বন্ধুদের, সহকর্মীদের জন্য পার্টি দেবেন
ভারতের ৫৮ লাখ টন চাল রফতানি ৬ মাসে ভারতের ৫৮ লাখ টন চাল রফতানি ৬ মাসে
খালি গায়ে ঘর পরিষ্কার করে মাসিক আয় ৪ লাখ টাকা! খালি গায়ে ঘর পরিষ্কার করে মাসিক আয় ৪ লাখ টাকা!
কাঁকড়ার রক্ত ১১ লাখ টাকা প্রতি লিটার! কাঁকড়ার রক্ত ১১ লাখ টাকা প্রতি লিটার!
বর্ণচোরা ভণ্ডদের ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবে জনগন- নাসিম বর্ণচোরা ভণ্ডদের ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবে জনগন- নাসিম
জাতীয় পার্টি আবার জেগে উঠেছে: এরশাদ জাতীয় পার্টি আবার জেগে উঠেছে: এরশাদ
নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ-গণতন্ত্রের জন্য ইতিবাচক
বহুল প্রত্যাশিত সংলাপে কি ছিল?
একটি অর্থবহ ও সফল সংলাপের প্রত্যাশা করছি
শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটের: প্রত্যাশিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হবে কি?
নদীশাসনের দুর্বলতা বিঘ্নিত হচ্ছে নৌপথে চলাচল
শিল্পে গ্যাস সংযোগ না দেওয়া, আর্থিক ক্ষতির মুখে-সরকার
গুদামের খাদ্যদ্রব্য পাচারে-সক্রিয় চোর সিন্ডিকেট
প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ৩০০ পৃষ্ঠার খসড়া অনুমোদন করেছে-ব্যাংকক
সড়ক শৃঙ্খলা-মূল সমস্যাটা রাজনীতিতেই: কাদের
বিশ্বের ভয়াবহ আবহাওয়া নিয়ে প্রযুক্তিগত আলোচনা চলছে