ঢাকা, ফেব্রুয়ারী ২১, ২০১৯, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫
---
bbc24news.com
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!
মঙ্গলবার ● ১ জানুয়ারী ২০১৯, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫
Email this News Print Friendly Version

বাংলাদেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা রোধ করুন!

---এম ডি জালাল:বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশে গত ১০টি নির্বাচন ও নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার চিত্র দেখলেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যায়। এ সহিংসতা থেকে রেহাই পায়নি পাড়া-প্রতিবেশী, স্বজন, এমনকি নিকটাত্মীয়ও।নির্বাচনের কথা বললে দুটি বিষয় আমাদের সামনে চলে আসে- একটি হল উৎসব, অন্যটি সহিংসতা। অতীতের কথা মনে করলে নির্বাচন ঘিরে যতটা আনন্দের অনুভূতি জাগে, তার চেয়ে বেশি জাগে ভয়ের অনুভূতি। আর এ ভীতি হল নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা, লুটতরাজ, ঘরবাড়ি-দোকানপাট-ভিটেমাটিতে অগ্নিসংযোগের। দেশে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা যেন স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা বন্ধে কোনো রাজনৈতিক দল কখনও কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। অনেকে বলে থাকেন, ‘এটি বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের সংস্কৃতি!’ কিন্তু এ ভাষ্য বাংলাদেশের ক্ষেত্রে কোনোভাবেই মানানসই নয়। সভ্যসমাজে সহিংস আচরণ কোনো দেশের সংস্কৃতি হতে পারে না। আর এ রকম কোনো বাস্তবতা থাকলেও তাকে সংস্কৃতি না বলে অপসংস্কৃতি বলাই যুক্তিযুক্ত। আমরা শান্তিপ্রিয় জাতি হিসেবে পরিচিত।
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তি স্থাপনে আমাদের শান্তিরক্ষী বাহিনী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। তাছাড়া এ অবস্থায় নির্বাচনী সহিংসতা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতার স্বার্থেই শুধু নয়, বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল রাখার জন্যও।

অতীতে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় অনেকে নিহত হয়েছেন, শারীরিকভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, অনেকের বাড়িঘরে আগুন দেয়া হয়েছে; কিন্তু সেসব ঘটনার কোনো বিচার হয়নি। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা হয়নি, বরং রাজনৈতিক দলগুলো এ ধরনের সহিংসতার কারণ রাজনৈতিক নয় বলে প্রচার করেছে। তারা একে সামাজিক, গোষ্ঠীগত এবং পরস্পর সম্পর্কচ্ছেদের কারণ হিসেবে অভিহিত করেছে। অনেক নেতা এমনও বলে থাকেন, পূর্বশত্র“তার কারণে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে নির্বাচনকে মোক্ষম সময় হিসেবে বেছে নেয়া এ ধরনের সহিংসতার কারণ।

এসব কারণে কোনো সরকারই নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। কোনো দলের নির্বাচনী ইশতেহারেও এ ব্যাপারে কিছু উল্লেখ করা হয়নি। রাজনৈতিক দলগুলো যেন অলিখিতভাবে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতাকে বৈধ বলেই স্বীকৃতি দিয়েছে!
নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার ক্ষয়ক্ষতির সঠিক কোনো পরিসংখ্যান প্রকাশের প্রয়োজন মনে করেনি কোনো সরকার। কেবল বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলোর প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে এ সংক্রান্ত আংশিক খবর আমরা জানতে পারি। আমরা প্রতিবারই দেখি জাতীয় নির্বাচনের পর বিজিত দল কর্তৃক প্রতিপক্ষ দলের নেতাকর্মীদের জন্য এক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়। এ কারণে অনেকে গ্রাম ছেড়ে কিংবা কেউ দেশ ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। এ ক্ষেত্রে সংখ্যালঘু, বিশেষত হিন্দু সম্প্রদায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় বেশি। তাই এবার নির্বাচনের পর সংখ্যালঘুসহ প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা যেন কোনোরকম হয়রানি বা নির্যাতনের শিকার না হন, সেদিকে প্রশাসনকে খেয়াল রাখতে হবে। নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে যারা সরকার গঠন করবেন তাদের বুঝতে হবে, তারা যখন সরকার গঠন করেন তখন সেটা রাষ্ট্রের সরকার হিসেবে বিবেচিত হয়, নির্দিষ্ট কোনো দলের নয়। সুতরাং দেশের প্রত্যেক নাগরিকের নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব তাদের ওপর বর্তায়। তাই এ অপরাধ দমনে সরকারকে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নিতে হবে।

প্রশাসন নির্বাচন-পরবর্তী সব ধরনের সহিংসতা প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা গ্রহণ করে বিশ্বে বাংলাদেশের মর্যাদা সমুন্নত রাখবে, জাতি হিসেবে এটাই সবার প্রত্যাশা। একই সঙ্গে রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের স্বরণ রাখতে হবে, দেশের সব মানুষের কল্যাণের জন্যই রাজনীতি এবং নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের কাজ হল জনগণের কল্যাণ ও উন্নয়ন সাধন। এই মূলনীতিটি সব সময় স্মরণে রাখতে পারলে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার মনোভাব থেকে তাদের ফিরে আসা সহজ হবে। একই সঙ্গে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা প্রতিরোধে নতুন সরকারকে আইন প্রণয়নে উদ্যোগী হতে হবে। শান্তিপ্রিয় মানুষকে শান্তিতে বসবাস করার নিশ্চয়তা দিতে হবে। গণতন্ত্রের মূল চেতনা- পরাজিত দলের প্রতি সমবেদনা, সহানুভূতি ও শ্রদ্ধার বিষয়টি ধারণ করে সহিংসতা পুরোপুরি পরিহার করতে হবে। এদিক থেকেও বাংলাদেশকে বিশ্বের রোল মডেল হতে হবে।


মেহের আফরোজ চুমকিকে এ কে আজাদের শুভেচ্ছা

চাপ দিলে ভিন্ন পথ বেছে নেব- পিয়ংইয়ং


এ বিভাগের আরো খবর...

প্রধানমন্ত্রীর জার্মানি সফর উন্নয়ন- কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার হবে! প্রধানমন্ত্রীর জার্মানি সফর উন্নয়ন- কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার হবে!
খেলাপি ঋণে ‘জিরো টলারেন্স’ চাই খেলাপি ঋণে ‘জিরো টলারেন্স’ চাই
জনতা ব্যাংকে নেতৃত্ব সংকট দেখা দিয়েছে জনতা ব্যাংকে নেতৃত্ব সংকট দেখা দিয়েছে
খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল ও ক্ষতিকর উপাদান রোধে নিতে হবে কঠোর পদক্ষেপ! খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল ও ক্ষতিকর উপাদান রোধে নিতে হবে কঠোর পদক্ষেপ!
৫ জনই ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতা ৫ জনই ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতা
পুলিশ সপ্তাহের পর প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিফলন কতটুকু ঘটবে? পুলিশ সপ্তাহের পর প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিফলন কতটুকু ঘটবে?
স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি: আমলে নিতে হবে? স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি: আমলে নিতে হবে?
নতুন মুদ্রানীতিতে কি হতে পারে? নতুন মুদ্রানীতিতে কি হতে পারে?
কর্মস্থলে চিকিৎসকদের অনুপস্থিতি শাস্তিযোগ্য আপরাধ! কর্মস্থলে চিকিৎসকদের অনুপস্থিতি শাস্তিযোগ্য আপরাধ!
দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রকৃত অর্থেই নিতে হবে জিরো টলারেন্স দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রকৃত অর্থেই নিতে হবে জিরো টলারেন্স

সর্বাধিক পঠিত

গেইলের ছক্কার বিশ্বরেকর্ড আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে গেইলের ছক্কার বিশ্বরেকর্ড আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে
আজহার, সৌরভ, কেউই ক্রিকেট চায় না পাকিস্তানের সঙ্গে আজহার, সৌরভ, কেউই ক্রিকেট চায় না পাকিস্তানের সঙ্গে
শাপলা-শালুক জামদানী শাপলা-শালুক জামদানী
সেন্টমার্টিনে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা জব্দ, আটক ১১ সেন্টমার্টিনে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা জব্দ, আটক ১১
মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার এভ্রিলকে সঙ্গে নিয়ে আসিফ মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার এভ্রিলকে সঙ্গে নিয়ে আসিফ
অভিনেতা প্রতীক বব্বর স্ত্রীর সঙ্গে অর্ধনগ্ন ছবি পোষ্ট করে বিপাকে অভিনেতা প্রতীক বব্বর স্ত্রীর সঙ্গে অর্ধনগ্ন ছবি পোষ্ট করে বিপাকে
আমাদের প্রিয় ‘আই আর’…চৌধুরী মনজুর লিয়াকত (রুমি) আমাদের প্রিয় ‘আই আর’…চৌধুরী মনজুর লিয়াকত (রুমি)
কিম কার্দাশিয়ান উন্মুক্ত দেহে ঝড় তুললেন! কিম কার্দাশিয়ান উন্মুক্ত দেহে ঝড় তুললেন!
বাংলাদেশের অগ্নিকান্ডে - মমতার সমবেদনা বাংলাদেশের অগ্নিকান্ডে - মমতার সমবেদনা
এবার ইয়ামিকে দেখা যাবে বিকিনিতে এবার ইয়ামিকে দেখা যাবে বিকিনিতে
প্রধানমন্ত্রীর জার্মানি সফর উন্নয়ন- কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার হবে!
খেলাপি ঋণে ‘জিরো টলারেন্স’ চাই
৫ জনই ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতা
দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রকৃত অর্থেই নিতে হবে জিরো টলারেন্স
বেআইনি ব্যাংকিং কার্যক্রমের বিরুদ্ধে বহুমুখী পদক্ষেপ নিন
খাদ্যে অতিরিক্ত ট্রান্সফ্যাটের কারণে, প্রতি বছর বিশ্বে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়
স্বাধীনতার পর প্রথমবার ‘মন্ত্রীশূন্য’ কিশোরগঞ্জ
মন চুরির অভিযোগ পুলিশের কাছে!
সৈয়দ আশরাফ যে কবরে সমাহিত হবেন
ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের বাধা দূর করতে হবে?