শিরোনাম:
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

BBC24 News
বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » আইন-আদালত | প্রিয়দেশ | শিরোনাম | সাবলিড » সাভারে ৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যায় ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
প্রথম পাতা » আইন-আদালত | প্রিয়দেশ | শিরোনাম | সাবলিড » সাভারে ৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যায় ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
২৩৫ বার পঠিত
বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

সাভারে ৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যায় ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

---বিবিসি২৪নিউজ,আদালত প্রতি বেদক ঢাকাঃ  রাজধানীর অদূরে ১০ বছর আগে সাভারের আমিনবাজারের বড়দেশী গ্রামে ৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় ১৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ১৯ জনকে দেওয়া হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। আর ২৫ জন খালাস পেয়েছেন।

ঢাকা জেলার দ্বিতীয় অতিরিক্ত দায়রা জজ ইসমত জাহান আজ বৃহস্পতিবার এ রায় ঘোষণা করেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেন রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনাকারী সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) শাকিলা জিয়াসমিন।

গত ২২ নভেম্বর এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ হয়। যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে আদালত রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন (২ ডিসেম্বর) ধার্য করেন। সে অনুযায়ী আজ রায় হলো।পিপি শাকিলা জিয়াসমিন জানান, এ মামলার মোট আসামি ছিল ৬০ জন। তাঁদের মধ্যে তিনজন মারা গেছেন, পলাতক ১২ জন। রায় ঘোষণা উপলক্ষে কারাগারে থাকা ৪৫ আসামিকে আজ আদালতে হাজির করা হয়।
আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, এ মামলায় ২০১৩ সালের ৮ জুলাই ৬০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ৫৫ জন সাক্ষীকে আদালতে হাজির করা হয়। মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়েছিল ২০১৩ সালের ৩০ ডিসেম্বর। সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হয় গত বছরের ১৮ আগস্ট এবং যুক্তিতর্ক শুরু হয় চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি।মামলার বিবরণ অনুযায়ী, ২০১১ সালের ১৭ জুলাই পবিত্র শবে বরাতের রাতে সাত বন্ধু ঘুরতে গিয়েছিলেন আমিনবাজারের বড়দেশী গ্রামে। রাত সোয়া একটার দিকে স্থানীয় কিছু দুর্বৃত্ত তাঁদের ডাকাত বলে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। এতে ছয়জন মারা যান, একজন প্রাণে বাঁচেন।

নিহত ছাত্রদের স্বজনদের ভাষ্য, হামলায় অংশ নেওয়া অধিকাংশ লোকই মাদক ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত।

হামলায় নিহত ছয় ছাত্র হলেন শামস রহিম, তৌহিদুর রহমান, ইব্রাহিম খলিল, কামরুজ্জামান, টিপু সুলতান ও সিতাব জাবির।

হামলায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া ছাত্রের নাম আল-আমিন।

হামলার ঘটনার পরদিন স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী আবদুল মালেক বাদী হয়ে সাত ছাত্রের বিরুদ্ধে সাভার থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেন। তদন্তে ডাকাতির মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়।

ছয় ছাত্রকে হত্যার অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে সাভার থানায় একটি মামলা করে। পরে উচ্চ আদালতের নির্দেশে মামলাটি র‍্যাবের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৩ জানুয়ারি র‍্যাব ৬০ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

অভিযোগপত্রে সাক্ষী করা হয় ৯২ জনকে। অভিযোগপত্রে বলা হয়, নিরীহ ছাত্রদের হত্যার উদ্দেশ্যে আসামিরা মারধর করেন। হত্যার ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় মসজিদের মাইকে ডাকাত আসার ঘোষণা দেওয়া হয়।



আর্কাইভ

আশুরা মিছিলে নাইজেরিয়ার সেনাদের হামলা; বহু হতাহত
ঢাকা ভাঙারির দোকানে বিস্ফোরণ, মৃত্যু বেড়ে ৬
ট্রাম্পের বাসায় এফবিআইয়ের অভিযান
তাজিয়া মিছিল হোসেনি দালান থেকে শুরু
যুক্তরাষ্ট্রে- বাংলাদেশের পোশাক রফতানি বেড়েছে
ডলারের দাম ছাড়াল ১১৫ টাকা
ইউক্রেনের পরমাণু স্থাপনায় রাশিয়ার হামলা আত্মঘাতী তৎপরতা: জাতিসংঘ
বিশ্ববাজারে কমলো জ্বালানি তেলের দাম
বঙ্গমাতা রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পত্মী হয়েও ছিলেন বাঙালি মায়ের চিরন্তন প্রতিচ্ছবি: রাষ্ট্রপতি
ক্ষমতার জৌলুস আমার মাকে আকৃষ্ট করতে পারেনি: প্রধানমন্ত্রী