শিরোনাম:
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯

BBC24 News
রবিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২২
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে অর্থ পাচার নজরদারি প্রয়োজন
প্রথম পাতা » সম্পাদকীয় » দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে অর্থ পাচার নজরদারি প্রয়োজন
২১৩ বার পঠিত
রবিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে অর্থ পাচার নজরদারি প্রয়োজন

---এম ডি জালালঃ বর্তমানে দেশ থেকে বিদেশে অর্থ পাচারে বড় ভূমিকা রাখছে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) বা মোবাইল বাংকিং। হুন্ডির মাধ্যমে পাঠানো হচ্ছে এ অর্থ। দেশ থেকে অর্থ পাচার হচ্ছে নানা পন্থায়। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) জানতে পেরেছে, ব্যক্তিগত পর্যায়ে হুন্ডির মাধ্যমে পাঠানো টাকার অঙ্ক খুব বেশি না হলেও মোট হিসাবে তা অনেক বড়। বছরে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে এই চ্যানেলে। জানা যায়, একে ঘিরে গড়ে উঠেছে অনেক সিন্ডিকেট। আর তা নিয়ন্ত্রণ করছে দেশের বাইরে থাকা অবৈধ কারবারিরা। তারা বিদেশ থেকে রেমিট্যান্সের ডলার সংগ্রহ করে তা অন্যত্র ব্যবহার করছে। আর দেশে তাদের চক্রের সদস্যরা গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে স্থানীয় মুদ্রা টাকা। এর ফলে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স কমে গেছে। এতে দেশ বঞ্চিত হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রা থেকে। আবার সীমান্ত এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে দেশের ভেতর থেকেও অর্থ পাচার করা হচ্ছে। এসব কারণে ডলার সংকট আরও তীব্র হয়েছে এবং কমে গেছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। পুরো বিষয়টি অত্যন্ত উদ্বেগজনক। সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উচিত অবিলম্বে এদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেওয়া। এ অবৈধ লেনদেন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া।

সন্দেহ নেই, মোবাইল ব্যাংকিং সাধারণ মানুষের ছোট ছোট অর্থ লেনদেন প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এছাড়া বিভিন্ন সেবার বিল পরিশোধের কাজটি অনেক সহজ করে দিয়েছে। তবে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের অপব্যবহার কাম্য নয় কোনোভাবেই। এ কারবার থেকে মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টদের নির্বৃত্ত করতে হবে। অনুসন্ধানে অন্তত ৫ হাজার মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টের হুন্ডি সম্পৃক্ততার তথ্য পেয়েছে সিআইডি। তবে শুধু মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টদের নির্বৃত্ত করলেই চলবে না, যে প্রক্রিয়ায় এ কারবার চলছে তাও বন্ধের ব্যবস্থা নিতে হবে। জানা যায়, এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে বিভিন্ন অ্যাপ। সিআইডি এরকম চারটি বিশেষ অ্যাপের কথা জানতে পেরেছে, যেগুলো পরিচালনা করা হয় দেশের বাইরে থেকে। হুন্ডি ব্যবসায়ীরা এগুলো ব্যবহার করে এমন পদ্ধতি গড়ে তুলেছে, যার মাধ্যমে এক মিনিটে ৫০ জনের কাছে টাকা পাঠানো যায়। আমরা মনে করি, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের অর্থ লেনদেনের ক্ষেত্রে এসব অ্যাপ নিষ্ক্রিয় করে ফেলা দরকার। সেই সঙ্গে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কর্মকাণ্ডকে সার্বক্ষণিক নজরদারির আওতায় আনতে হবে।

দেশের অর্থনীতিতে রেমিট্যান্সের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কাজেই প্রবাসী কর্মীরা তাদের কষ্টার্জিত টাকা দেশে যাদের কাছে পাঠান, তারা যাতে কোনোভাবেই হয়রানির শিকার না হন, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। দেশে অর্থ পাঠানোর জটিল প্রক্রিয়া অথবা বিভিন্ন চার্জ এড়াতে অনেক প্রবাসী টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে হুন্ডির আশ্রয় নেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে সিআইডি বলছে, বিদেশ থেকে অর্থ পাঠানোর প্রক্রিয়া আরও সহজ করা প্রয়োজন। সেই সঙ্গে দেশে রেমিট্যান্সের অর্থ কোনো চার্জ ছাড়াই গ্রাহকের কাছে দ্রুত পাঠিয়ে দেওয়া উচিত। আমরাও মনে করি, এ দিকটিতে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি দেওয়া দরকার। পাশাপাশি অর্থ পাঠানোর অবৈধ প্রক্রিয়া পরিহার করবেন প্রবাসীরা, এটিও কাম্য।



আর্কাইভ

বাংলাদেশ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় এক ধাপ অবনমন
দেশে রমজানে বিদেশি ফল আমদানি বন্ধের সুপারিশ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ উপনির্বাচনঃ নিখোঁজ’ প্রার্থী “আসিফ” আত্মগোপনে, ফোনালাপ ফাঁস
বিটিআরসিকে ১৯১টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে চিঠি দেওয়া হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী
পাকিস্তানে বোমা হামলায় নিহত বেড়ে ৫০
বাংলাদেশের সাড়ে চার বিলিয়ন ডলার ঋণ প্রস্তাব উঠছে আইএমএফ বোর্ডে
রুশ হামলা থেকে রক্ষায় সমরাস্ত্র চেয়েছেন: জেলেনস্কি
কনজারভেটি পার্টির চেয়ারম্যানকে বরখাস্ত করলেন- ব্রিটেন প্রধানমন্ত্রী
আফগানিস্তানে তীব্র শীতে ১৬০ জনের মৃত্যু
বিশ্বে শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তোলার আহ্বান রাষ্ট্রপতির